ঘূর্ণবাত ও প্রতীপ ঘূর্ণবাত এর পার্থক্য

ঘূর্ণবাত ও প্রতীপ ঘূর্ণবাত এর পার্থক্য 

ঘূর্ণবাত ও প্রতীপ ঘূর্ণবাতের পার্থক্য গুলি হলো 一

⏩ ভূপৃষ্ঠস্থ চাপ

ঘূর্ণবাত : কেন্দ্রে কম , কেন্দ্র থেকে বাইরের দিকে বেশি।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : কেন্দ্রে বেশি , কেন্দ্র থেকে বাইরের দিকে কম ।

⏩ বায়ুর দিক 

ঘূর্ণবাত : উত্তর গোলার্ধে বামাবর্তে ও দক্ষিণ গোলার্ধে দক্ষিণাবর্তে ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : উত্তর গোলার্ধে বামাবর্তে ও দক্ষিণ গোলার্ধে দক্ষিণাবর্তে ।

⏩ বায়ুপ্রবাহ

ঘূর্ণবাত : ভূপৃষ্ঠে — অভিসারী ও ঊর্ধ্বে — প্রতিসারী । বায়ু ঊর্ধ্বগামী হয় । বায়ুপ্রবাহ বাইরে থেকে কেন্দ্রের দিকে হয় ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : ভূপৃষ্ঠে — প্রতিসারী ও ঊর্ধ্বে — অভিসারী । বায়ু অধোগামী হয়। বায়ুপ্রবাহ কেন্দ্র থেকে বাইরের দিকে হয় ।

⏩ বায়ুর গতিবেগ

ঘূর্ণবাত : মাঝারি থেকে তীব্র গতি সম্পন্ন ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : ধীর গতিসম্পন্ন ।

⏩ অধঃক্ষেপণ

ঘূর্ণবাত : প্রবল বৃষ্টি হয় ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : বৃষ্টি হয় না , আবহাওয়া শুষ্ক থাকে  ।

⏩ স্থিরতা

ঘূর্ণবাত : ঘূর্ণবাতে বায়ু অস্থির ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : প্রতীপ ঘূর্ণবাতে বায়ু স্থির।

⏩ মেঘাচ্ছন্নতা 

ঘূর্ণবাত : আকাশ মেঘে পরিপূর্ণ থাকে ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : মেঘের কোনাে চিহ্ন থাকে না । আকাশ পরিষ্কার রােদে ঝলমল করে ।

⏩ স্থায়িত্ব ও ধ্বংস ক্ষমতা

ঘূর্ণবাত : অল্পক্ষণ স্থায়ী হয় । তবে খুব শক্তিশালী ও বিধ্বংসী ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : দীর্ঘকাল স্থায়ী হয় । তবে ঘূর্ণবাতের মতাে শক্তিশালী ও বিধ্বংসী হয় না ।

⏩ চাপঢাল

ঘূর্ণবাত : তাপের তীব্র বৈষম্য আছে বিশেষত সীমান্ত অংশে ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : কেন্দ্র থেকে বাইরের দিকে তাদের বৈষম্য খুব কম।

⏩ ভ্রমণের গতি

ঘূর্ণবাত : খুব ধীর অথবা স্থির থাকে ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : সাধারণত গতিশীল থাকে ।

⏩ আয়তন

ঘূর্ণবাত : সাধারণত বেশি বড়াে হয় না ।

প্রতীপ ঘূর্ণবাত : সাধারণত বেশি বড় হয় ( ব‍্যাস ৩০০০ কিমি পর্যন্ত হয় ) । 

Leave a Comment

error: Content is protected !!