স্তুপ পর্বত

স্তুপ পর্বত

স্তুপ পর্বত

ভূ-আলােড়নজনিত টান ও সংনমনের প্রভাবে যখন ভূত্বকের শিলাস্তরে ফাটল ও চ্যুতি দেখা দেয় এবং তার ফলে চ্যুতির একদিকের শিলাস্তর স্তুপাকারে ওপরে উঠে পড়ে পর্বতের সৃষ্টি করে , তখন তাকে বলে স্তুপ পর্বত । 

উদাহরণ — ভারতের সাতপুরা পর্বত স্তুপ পর্বতের উল্লেখযােগ্য উদাহরণ । এছাড়া ফ্রান্সের ভোজ এবং জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্ট পর্বত দুটিও স্তুপ পর্বতের বিশিষ্ট উদাহরণ । 

স্তুপ পর্বতের উৎপত্তি

অনেক সময় প্রবল ভূ-আলােড়নের ফলে ভূত্বকের শিলাস্তরে প্রচণ্ড টান ও সংনমনের সৃষ্টি হয় এবং এর ফলে শিলাস্তরে কোণাকুণি ভাবে বা খাড়াভাবে ফাটল দেখা যায় । পরে আবার ভূ-আলােড়নের ফলে ওই ফাটলের একদিকের অংশ অন্য অংশ থেকে বিচ্যুত হয়ে নীচে বসে যায় বা ওপরে উঠে পড়ে । একে বলে চ্যুতি । ভূত্বকে যে রেখা বরাবর এই চ্যুতির সৃষ্টি হয় , তাকে চ্যুতি রেখা এবং যে তলে চ্যুতি হয় , তাকে চ্যুতি তল বলে । ওই চ্যুতির ফলে যখন ভূত্বকের শিলাস্তর চ্যুতি রেখা বরাবর স্তুপাকারে ওপরে উঠে পড়ে , তখন সৃষ্টি হয় স্তুপ পর্বত । স্তুপ পর্বত দু-ভাবে সৃষ্টি হয় । যথা —

( ১ ) দুটি সমান্তরাল চ্যুতি রেখার মাঝখানের অংশ চাপের ফলে ওপরে উঠে পর্বত সৃষ্টি করে । একে বলে হোর্স্ট জাতীয় স্তুপ পর্বত । সাতপুরা এই ধরনের স্তুপ পর্বত । 

( ২ ) দুটি সমান্তরাল চ্যুতি রেখার মধ্যবর্তী অংশের ভূমি খাড়াভাবে বসে গেলে ওই অবনমিত অংশের দু-পাশে যে দুটি উচ্চভূমির সৃষ্টি হয় , সে দুটি স্তুপ পর্বত । ফ্রান্সের ভােজ এবং জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্ট এই ধরনের দুটি স্তুপ পর্বত । স্তুপ পর্বতের পাশে সাধারণত গ্রস্ত উপত্যকার সৃষ্টি হয় । দুটি সমান্তরাল চ্যুতি রেখার মধ্যবর্তী অংশ উঁচু না হয়ে কোনাে কারণে নীচে বসে গেলে ওই অবনত বা বসে যাওয়া অংশকে বলে গ্রস্ত উপত্যকাভােজব্ল্যাক ফরেস্ট — এই দুই স্তুপ পর্বতের মধ্যবর্তী গ্রস্ত উপত্যকা দিয়ে রাইন নদী প্রবাহিত হয়েছে ।

স্তুপ পর্বতের বৈশিষ্ট্য

স্তুপ পর্বতের বৈশিষ্ট্য গুলি হল — 

( ১ ) দুটি সমান্তরাল চ্যুতি রেখার মাঝখানের অংশ চাপের ফলে ওপরে উঠে পড়লে হোর্স্ট জাতীয় স্তুপ পর্বতের সৃষ্টি হয় । এই ধরনের স্তুপ পর্বতের দু-পাশে দুটি গ্রস্ত উপত্যকা থাকে । উদাহরণ — সাতপুরা এই ধরনের পর্বত এবং দু-পাশের দুটি গ্রস্ত উপত্যকা দিয়ে যথাক্রমে নর্মদাতাপ্তী নদী প্রবাহিত হয়েছে । 

( ২ ) দুটি সমান্তরাল চ্যুতি রেখার মধ্যবর্তী অংশের ভূমি খাড়াভাবে বসে গেলে ওই অবনমিত অংশের দু-পাশে দুটি স্তুপ পর্বত সৃষ্টি হয় এবং এর মধ্যভাগে থাকে গ্রস্ত উপত্যকা । উদাহরণ — ফ্রান্সের ভোজ এবং জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্ট এই ধরনের দুটি স্তৃপ পর্বত এবং এই দুয়ের মধ্যবর্তী গ্রস্ত উপত্যকা দিয়ে রাইন নদী প্রবাহিত হয়েছে । 

( ৩ ) স্তুপ পর্বতের দু-পাশের ঢাল বেশ খাড়া এবং মাথা কিছুটা চ্যাপটা হয় । 

( ৪ ) উচ্চতা খুব বেশি হয় না এবং সুবিস্তৃত অঞ্চল জুড়েও থাকে না ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!