তৃতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধ

তৃতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধ

index 9
তৃতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধ

দ্বিতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধে পরাজয় ও অপমানকর সন্ধি স্বাক্ষরের জ্বালা কোনাে মারাঠা নেতা ভুলতে পারেননি । পেশােয়াসহ মারাঠা সর্দারেরা ক্রমে বুঝতে পরেন যে , অধীনতামূলক মিত্রতা নীতি ভিত্তিক সন্ধি স্বাক্ষর করার ফলে স্বাধীন মারাঠা রাজ্যের অস্তিত্ব নষ্ট হয়েছে । অতঃপর কালক্রমে ইংরেজ শক্তি সর্বময় হয়ে উঠবে । তাই যে কোনাে শর্তে ইংরেজদের আঘাত হানার ইচ্ছা মারাঠা নেতৃবৃন্দের মনে দানা বাঁধছিল । পেশােয়া আন্তরিকভাবে ‘ বেসিনের সন্ধি ’ ( ১৮০২ খ্রিঃ ) মেনে নিতে পারেন নি । তাই তিনিও ইংরেজ প্রভাব মুক্ত হতে আগ্রহী ছিলেন । অন্যান্য মারাঠা সর্দারেরা এই মুহূর্তে পেশােয়ার পাশে দাঁড়াতে পিছপা ছিলেন না । তবে পুনা দরবারের ব্রিটিশ রেসিডেন্ট এলফিনস্টোন মারাঠা সর্দারদের গতিবিধির উপর তীক্ষ্ণ নজর রাখছিলেন । তাই মারাঠা নেতারা বাইরে ইংরেজ বন্ধুত্ব বজায় রেখে নিজেদের সংহত ও শক্তিশালী করছিলেন । 

ইঙ্গ মারাঠা বিরোধ

বরােদা সংক্রান্ত একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইঙ্গ মারাঠা বিরােধ প্রকাশ হয়ে পড়ে । বরােদার গাইকোয়াড় ছিলেন পেশােয়ার সামন্ত । পেশােয়াকে প্রদেয় গাইকোয়াড় -এর কর অধিক দিন বাকি পড়ায় উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেয় । এই বিরােধ মীমাংসার জন্য ইংরেজ কর্তৃপক্ষ মধ্যস্থতা শুরু করে । সেই মতাে গাইকোয়াড় -এর মন্ত্রী গঙ্গাধর শাস্ত্রী ইংরেজ প্রহরাধীনে পেশােয়ার দরবারে উপস্থিত হন । এদিকে গাইকোয়াড় এবং গঙ্গাধর শাস্ত্রী উভয়েই ছিলেন ব্রিটিশ তাবেদার । তাই এদের প্রতি অন্যান্য মারাঠাদের ক্ষোভ ছিল । পেশােয়ার মন্ত্রী ত্রিম্বকজী ডিংলে ছিলেন বিচক্ষণ , দেশপ্রেমিক এবং ইংরেজ বিদ্বেষী । ইংরেজের প্রাধান্যের বিরুদ্ধে মারাঠাদের ঐক্যবদ্ধ করার পেছনে তার বিশেষ অবদান ছিল । যাই হােক , গঙ্গাধর শাস্ত্রী পুনায় আসার পর আততায়ীর হাতে নিহত হন ( ১৮১৫ খ্রিঃ ) । ইংরেজগণ এই হত্যাকাণ্ডের জন্য ত্রিম্বকজীকে দায়ী করে এবং পুনায় তাকে বন্দি করে রাখা হয় । কিন্তু এক বছরের মধ্যেই ত্রিম্বকজী বন্দিদশা মুক্ত হয়ে আত্মগােপন করেন । ইংরেজ কর্তৃপক্ষ এজন্য পেশােয়াকে দায়ী করে এবং ত্রিম্বকজীকে ধরে দেবার জন্য পেশােয়ার উপর চাপ দিতে থাকে । অবশ্য পেশােয়া ইংরেজের দাবিকে নস্যাৎ করে দেন । 

পুনা সন্ধি  

এদিকে গভর্নর জেনারেল লর্ড হেস্টিংস পিণ্ডারি দস্যুদের দমনের জন্য এক পরিকল্পনা করছিলেন । পিণ্ডারিদের সাথে মারাঠাদের বন্ধুত্ব ছিল । তাই ইঙ্গ-পিণ্ডারী যুদ্ধে মারাঠাদের পিণ্ডারিদের পক্ষে যােগদানের সমূহ সম্ভাবনা ছিল । তা যাতে সম্ভব না হয় সেজন্য লর্ড হেস্টিংস পেশােয়ার উপর জোরপূর্বক ‘ পুনা সন্ধি ’ ( ১৮১৭ খ্রিঃ ) চাপিয়ে দেন । এই সন্ধি অনুসারে পেশােয়া পদ লুপ্ত হয় । পেশােয়া তার রাজ্যের একাংশ ইংরেজের হাতে সমর্পণ করেন । 

নাগপুর সন্ধি  

এই সময়ে নাগপুর রাজ্যে অভ্যন্তরীণ গােলযােগ চলছিল । রঘুজী ভোঁসলের মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র পার্শ্বজী ভোঁসলে নাগপুরের সিংহাসনে বসেন । কিন্তু তার আত্মীয় আপ্পা সাহেব ক্ষমতালাভের আশায় ইংরেজের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন এবং ‘ নাগপুরের সন্ধি ’ দ্বারা অধীনতামূলক মিত্রতায় আবদ্ধ হন । 

তৃতীয় ইঙ্গ মারাঠা যুদ্ধ 

পুনা সন্ধি ’ ও ‘ নাগপুরের সন্ধি ’ মারাঠা সর্দারদের প্রচণ্ডভাবে ক্ষুব্ধ করে । পেশােয়ার নির্দেশে পুনার ইংরেজ রেসিডেন্সি অগ্নিদগ্ধ করা হয় । শুরু হয় ‘ তৃতীয় ঈঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধ ’ । প্রাণপণ যুদ্ধ করেও মারাঠা বাহিনী পরাজিত হতে থাকে । কিরকীর যুদ্ধে পেশােয়া পরাজিত হন । ভোঁসলে এবং হােলকার বাহিনীও বিধ্বস্ত হয় । অতি ও কোরগাঁও -এর যুদ্ধে চূড়ান্তভাবে পরাজিত হয়ে পেশােয়া আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হন ( ১৮১৯ খ্রিঃ ) । 

তৃতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধের গুরুত্ব ও ফলাফল

মারাঠা শক্তির চূড়ান্ত পতন ডেকে এনেছিল তৃতীয় ঈঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধ । অতঃপর পেশােয়াপদ স্থায়ীভাবে লােপ করা হয় । পেশােয়ার রাজ্য কোম্পানির অন্তর্ভুক্ত হয় । পেশােয়াকে বাৎসরিক ৮ লক্ষ টাকা ভাতাদানের ব্যবস্থা করা হয় । তা ছাড়া হােলকার অধীনতামূলক মিত্রতার অন্তর্ভুক্ত হন । আপ্পা সাহেবকে নাগপুর থেকে বিতাড়িত করা হয় । নাগপুরের একাংশ ইংরেজের হস্তগত হয় । বাকি অংশ কোম্পানির এক অনুগত ব্যক্তিকে বসানাে হয় । পেশােয়ার রাজ্যের একটি শিবাজীর জনৈক বংশধরকে দান করা হয় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x
error: Content is protected !!