বে অব পিগস ঘটনা কি

বে অব পিগস ঘটনা কি

index 9
বে অব পিগস ঘটনা কি

ক্যারিবিয়ান সাগরের বুকে কিউবা দ্বীপটির পশ্চিমের উপসাগরটির নাম ‘ বে অব পিগস ‘ অর্থাৎ ‘ পিগ উপসাগর ‘। ১৯৬১ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিল মাসে আমেরিকার মদতে ফিদেল কাস্ত্রো-বিরােধী ১৫০০ কিউবান ( কিউবার নাগরিক ) নিকারাগুয়া থেকে ‘ বে অব পিগস ’ – এ অবতরণ করে । এরা কিউবার ওপর আক্রমণ চালায় । উল্লেখ্য , বিদ্রোহীদের সাহায্যের জন্য ওই সময় মার্কিন ‘ বি -২৬ ’ বােমারু বিমানও প্রস্তুত ছিল । যাইহােক , দু-দিনের মধ্যেই ওই বিদ্রোহ দমিত হয় । এই ঘটনাই বে অব পিগস নামে পরিচিত । 

প্রেক্ষাপট 

এই ঘটনার উৎস কিন্তু আরও গভীরে । কিউবায় মার্কিন মদতপুষ্ট বাতিস্তা সরকারের উচ্ছেদ ঘটিয়ে ১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দে ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বাধীনে এক নতুন সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ।

সমাজতান্ত্রিক প্রভাব : 

কাস্ত্রোর সঙ্গে সােভিয়েত রাশিয়া , চীন-সহ সমাজতান্ত্রিক দুনিয়ার বিভিন্ন রাষ্ট্রের ক্রমশ নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠছিল । তা ছাড়া কিউবায় আমেরিকার মূলধনে তৈরি সমস্ত আখের খেত এবং চিনির কলগুলি জাতীয়করণ করে কাস্ত্রো তাঁর সমাজতান্ত্রিক মনােভাবের পরিচয় দেন । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এগুলিকে মােটেই ভালাে চোখে দেখেনি । 

কাস্ত্রোর সঙ্গে মার্কিনিদের বিরােধ : 

কাস্ত্রোর সমাজতান্ত্রিক কার্যকলাপের ফলে তার সঙ্গে মার্কিনিদের সম্পর্কের অবনতি ঘটতে শুরু করে । কাস্ত্রোর সরকার একটি আইন পাশ করে জানায় ( ১৯৬০ খ্রি. ৯ জুলাই ) যে , জাতীয় স্বার্থে কিউবায় অবস্থিত যে-কোনাে জাতীয় সম্পত্তি বিনা ক্ষতিপূরণে জাতীয়করণ করা যাবে । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কিউবার কমিউনিস্ট-বিরােধী দেশত্যাগীদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দিয়ে কাস্ত্রো সরকারের বিরুদ্ধে মদত দিতে থাকে । এর পরিপ্রেক্ষিতে কিউবা আক্রমণ বা ‘ বে অব পিগস ’ ঘটনা সংঘটিত হয় । 

অভিযানের বর্ণনা 

১৯৬১ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারিতে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট কেনেডি কিউবায় অভিযানের অনুমতি দেন । কিউবান ন্যাশনাল রেভােলিউশনারি কাউন্সিল নামে এক সংগঠন এই অভিযানের প্রস্তুতি নেয় । এই সংগঠনটির প্রধান কেন্দ্র ছিল নিউইয়র্ক । কিউবার ক্ষমতাচ্যুত নেতা কারদোনার নেতৃত্বে এই সংগঠনটির ১৫০০ সদস্য ১৪ এপ্রিল ( ১৯৬১ খ্রি. ) মধ্যরাত্রে কিউবার বে অব পিগসে অবতরণ করে । অবতরণকারী সেনাদের নিকারাগুয়া থেকে বিমানবাহিনী এসে সাহায্য করে । কিন্তু ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই কিউবা সরকার অভিযানকারীদের পর্যুদস্ত করে দেয় । 

ঘটনার পরিণাম 

ঘটনার নিন্দা : 

সারা বিশ্ব এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে । ফলে আমেরিকার পক্ষে তা খুবই অস্বস্তিকর হয়ে দাঁড়ায় । 

সােভিয়েতের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি : 

এই ঘটনার পর থেকে কাস্ত্রো আরও বেশি করে সােভিয়েত রাশিয়ার দিকে ঝুঁকে পড়েন । 

সমাজতান্ত্রিক সরকার গঠন : 

পরের বছরই কিউবা একটি সমাজতান্ত্রিক দেশ হিসেবে ঘােষিত হয় । 

কাস্ত্রোর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি :

কাস্ত্রোর নেতৃত্বাধীন কিউবা সরকারের এই সাফল্যে সমগ্র লাতিন আমেরিকাতে কাস্ত্রোর মর্যাদা ও প্রভাব বহুগুণ বৃদ্ধি পায় ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!