স্ট্যালিনগ্রাডের যুদ্ধ

স্ট্যালিনগ্রাডের যুদ্ধ

দশ বছরের জন্য স্বাক্ষরিত রুশ জার্মান অনাক্রমণ চুক্তি অমান্য করে হিটলার রাশিয়া আক্রমণ করেছিলেন ( ১৯৪১ খ্রি. ২২ জুন ) । হিটলারেরঅপারেশন বারবারোসা মারাত্মকভাবে প্রতিহত হয় স্টালিনগ্রাডের যুদ্ধে । হিটলার অনুমান করেছিলেন এই যুদ্ধে জার্মানির জয় অবশ্যম্ভাবী । কিন্তু তাঁর অনুমান ভুল প্রমাণ করে স্টালিনগ্রাডের যুদ্ধ । 

জার্মানির স্টালিনগ্রাড অভিযান 

জার্মান সেনাপতি ভন পাউলাস এর নেতৃত্বে জার্মান সেনারা তিনটি দলে ভাগ হয়ে লেনিনগ্রাদ , মস্কো ও স্টালিনগ্রাদে যুদ্ধ শুরু করে । জার্মান সেনাবাহিনী ৪০ লক্ষ সেনা ( হাঙ্গেরি ও ইতালির সেনাবাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে ) , ৫ হাজার জঙ্গিবিমান ও ৩,৩০০ ট্যাংক সহযােগে রাশিয়ায় ঢুকতে শুরু করে । উত্তরে বাল্টিক সাগর থেকে দক্ষিণে কৃষ্ণ সাগর পর্যন্ত প্রায় আড়াই হাজার মাইল এলাকা জুড়ে যুদ্ধ শুরু হয় । 

স্টালিনগ্রাডে রাশিয়ার প্রতিরোধ

নেপােলিয়নের বিরুদ্ধে রুশ সেনাবাহিনী যে কৌশল গ্রহণ করেছিল , জার্মান বাহিনীর বিরুদ্ধেও সেই পোড়ামাটি নীতি প্রয়ােগ করে । রুশ সেনারা নিজেদের ঘরবাড়ি , সেতু , শস্য-সম্পদ সবকিছু আগুনে পােড়াতে পােড়াতে পিছু হটতে থাকে । মার্শাল ঝুকভ এর নেতৃত্বে স্টালিনগ্রাডের ১৪ ডিভিশন জার্মান বাহিনীর বিরুদ্ধে সাঁড়াশি আক্রমণ শুরু করে । রুশ সেনাদল স্টালিনগ্রাডের পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে সেখানকার যুদ্ধরত জার্মানদের মূল জার্মান বাহিনী থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় । 

স্ট্যালিনগ্রাডের যুদ্ধের ফলাফল 

মার্শাল ঝুকভ এর নেতৃত্বে সােভিয়েত বাহিনী অক্ষসেনাকে পর্যুদস্ত করে । এই যুদ্ধে ৭৫ শতাংশ অক্ষসেনা প্রাণ হারায় । জার্মান সেনাপতি ভন পাউলাস আত্মসমর্পণ করেন । ১৬ জুন সেনাপতি সহ জীবিত ৮০ হাজার জার্মান সেনা সােভিয়েত ইউনিয়নের হাতে বন্দি হয় । 

উপসংহার 

স্টালিনগ্রাডের যুদ্ধে রুশ সেনাবাহিনী যে বীরত্বের পরিচয় দিয়েছিল এবং হিটলারের সাধের অপারেশন বারবারোসা কে যেভাবে ধুলােয় মিশিয়ে দিয়েছিল , তাতে এটা প্রমাণ হয়েছিল যে জার্মান সেনারা অপ্রতিরােধ্য নয় । স্টালিনগ্রাডের যুদ্ধ বিশ্বের স্বাধীনতাপ্রেমী মানুষের কাছে আজও আদর্শ ও অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে আছে ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!