হিটলারের চেকোস্লোভাকিয়া দখল

হিটলারের চেকোস্লোভাকিয়া দখল

বিনা বাধায় অস্ট্রিয়া দখলে সমর্থ হয়ে হিটলারের রাজ্যগ্রাসের স্পৃহা সীমাহীন হয়ে ওঠে । অস্ট্রিয়া দখলের অব্যবহিত পরেই তিনি চেকোস্লোভাকিয়া দখল করতে উদ্যোগী হন । রাজনৈতিক , সামরিক ও অর্থনৈতিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ এই দেশটিকে দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের প্রবেশদ্বার বলে অভিহিত করা হয় ।

চেকোস্লোভাকিয়ার সুদেতান জেলাটি ছিল জার্মানির সীমান্ত সংলগ্ন । হিটলারের নির্দেশে সুদেতান অঞ্চলের নাৎসি নেতা হেনলিয়েন  দাবি জানিয়ে বলেন , যেহেতু সুদেতান অঞ্চলে জার্মানরা বেশি বসবাস করে , তাই এই অঞ্চলটি জার্মানির প্রাপ্য । হিটলার জার্মান রাইখের স্বার্থে সুদেন জেলা দখলের হুমকি দিলে ফ্রান্স ও রাশিয়ার সঙ্গে জার্মানির যুদ্ধের সম্ভাবনা দেখা দেয় । ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী নেভিল চেম্বারলেন চেক সরকারকে সুদেতান জেলা জার্মানিকে ছেড়ে দিতে বলেন । চেক সরকারও তাতে রাজি হন । ফলে মুসোলিনির মধ্যস্থতায় ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী চেম্বারলেন , ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী দালাদিয়েরের সঙ্গে হিটলারের এক চুক্তি হয় , যা মিউনিখ চুক্তি নামে পরিচিত । 

এই চুক্তির ফলে সুদেতান অঞ্চলটি পাকাপাকি ভাবে জার্মানির হাতে আসে । কিন্তু হিটলার চেয়েছিলেন আরও বেশি । মিউনিখ চুক্তির কিছুকাল পরেই হিটলারের প্ররােচনায় শ্লেভাক জাতি চেকদের শাসন থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য গণ্ডগােল সৃষ্টি করে । জার্মান সীমান্তে গণ্ডগােল সৃষ্টির অজুহাতে হিটলার সমগ্ৰ চেকোস্লোভাকিয়া দখল করে নেন ( ১৫ মার্চ , ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দ ) ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!