ভারতে ইউরোপীয় শিল্প উদ্যোগের কারণ

ভারতে ইউরোপীয় শিল্প উদ্যোগের কারণ

উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়কাল থেকেই ভারতে শিল্পক্ষেত্র প্রতিষ্ঠিত হতে শুরু করে । ইউরােপীয় পুঁজিপতি গােষ্ঠী ও শিল্পপতিরা তাদের আর্থিক মুনাফা ও সাম্রাজ্যবাদী স্বার্থে ভারতে শিল্প প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগী হয় । এক্ষেত্রে ইউরােপীয়দের মধ্যে ব্রিটিশ শিল্পপতিরাই সব থেকে এগিয়েছিল । ব্রিটিশ উপনিবেশগুলিতেই তারা বেশি পুঁজি ( শতকরা ৪০ ভাগ ) লগ্নি করেছিল । ভারতে ইউরোপীয় শিল্প উদ্যোগের মাধ্যমে পুঁজি অনুপ্রবেশের বেশ কিছু কারণ ছিল —

Lancashire cotton mill steam powered weaving shed photo published in More Pictures of British History circa 1914
ভারতে ইউরােপীয় শিল্প

ঔপনিবেশিক শাসন ব্যবস্থা

ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন ব্যবস্থার কল্যাণে ইউরােপীয় তথা ব্রিটিশ শিল্পপতিদের পক্ষে বেশ কিছু আইন তৈরি হয় । এর সুবাদে ভারতের শিল্পপণ্যের বাজার দখল করা ইউরােপীয়দের পক্ষে অনেক সহজ হয়েছিল ।

সস্তা শিল্প শ্রমিক

ব্রিটিশ শাসন ব্যবস্থার অধীনে পদানত থাকা বহু অসহায় নিঃস্ব ভারতবাসীকে সস্তা শ্রমিক ( cheap labour ) রূপে পেতে বিদেশি শিল্পপতিদের অসুবিধা হয়নি । ইউরােপীয় শিল্পপতিরা অল্প বেতন দিয়ে ভারতীয় শ্রমিকদের বেশি সময়ে খাটিয়ে নিতে পারত ।

কোম্পানির কর্মচারীদের প্রত্যক্ষ মদত

কোম্পানির কর্মচারীরা বিদেশি শিল্পপতিদের প্রত্যক্ষ ভাবে মদত দেওয়ায় তাদের পক্ষে এদেশে শিল্প স্থাপন করা সহজ হয়েছিল । কোম্পানির কর্মচারীরা ইউরােপীয় শিল্পপতিদের শিল্প স্থাপনের জন্য নানা রকমের সরকারি সাহায্য দিতে শুরু করেছিল । যা ইউরােপীয় শিল্পপতিদের উৎসাহ দান করেছিল।

শিল্পের উপযুক্ত পরিবেশ

শিল্প স্থাপনের জন্য প্রয়ােজনীয় সুযােগ সুবিধা , যেমন — সস্তায় কাঁচামাল , কম পরিবহন খরচ , সুলভ শ্রমিক ইত্যাদি কারণে বিদেশি শিল্পেদ্যোগীরা ভারতকে বেছে নিয়েছিল ।

ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লব

ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লব ঘটে যাওয়ায় নতুন নতুন যন্ত্রপাতি আবিষ্কৃত হয় , যেগুলিকে কাজে  লাগিয়ে বিদেশি উদ্যোগপতিরা ভারতের কাঁচামালের সাহায্য নিয়ে এদেশেই শিল্প গড়ে তুলতে চেয়েছিল ।

ব্যাপক লাভের হাতছানি

ইউরােপীয় শিল্পপতিরা ভারতে সস্তায় কাঁচামাল সংগ্রহ করে শিল্পোৎপাদন করত । উৎপাদিত পণ্য তারা ভারতে ও বিদেশের বাজারে উচ্চহারে বিক্রয় করতে পারত বলে তাদের লাভের পরিমাণ অধিক হত । ফলে ভারতের বিভিন্ন শিল্পক্ষেত্রে মূলধন বিনিয়ােগ করলে যে পরিমাণ লাভের অঙ্ক থাকবে তা দিয়েই পুনরায় নতুন শিল্পের পুঁজি গঠিত হবে । এই হিসাব কষে বিদেশি শিল্পপতিরা এদেশে এসেছিল ।

শিল্পপণ্যের বাজার

ভারত ও তার প্রতিবেশী দেশগুলিতে বিদেশি শিল্পজাত পণ্যের যে বিশাল চাহিদা ছিল তা  লক্ষ করে ইউরােপীয় শিল্পোদ্যোগীরা এদেশে মূলধন বিনিয়ােগ করে ।

বিশ্বে পুঁজি বিনিয়োগের সংকুচিত ক্ষেত্র

উনিশ শতক থেকেই বিদেশি পুঁজি বিনিয়োগের ক্ষেত্রগুলি সংকুচিত হওয়ায় বিদেশি শিল্পোদ্যোগীরা উপযুক্ত বিনিয়োগ ক্ষেত্র খুঁজছিল, এক্ষেত্রেই ভারতকেই তারা সর্বোত্তম পুঁজি বিনিয়োগের ক্ষেত্র রূপে বেছে নিয়েছিল।

সমালোচনা

ভারতে আধুনিক শিল্পের বিকাশে ইউরোপীয় উদ্যোগ বিভিন্নভাবে সমালোচিত হয়েছে।

  • ইউরোপীয় শিল্পপতি গোষ্ঠী কখনোই ভারতকে আধুনিক রূপে গড়ে তুলতে চাননি। তাঁদের একমাত্র লক্ষ্য ছিল দ্রুত এবং বেশি পরিমাণে এদেশ থেকে মুনাফা অর্জন করা।
  • কোন একটি দেশে শিল্পায়নের অগ্রগতি বিবেচিত হয় সেই দেশের ভারী শিল্পের নিরিখে। কিন্তু ভারতে ইউরোপীয় শিল্পোদ্যোগের ক্ষেত্রে ভারী শিল্প অবহেলিত ছিল।

Leave a Comment

error: Content is protected !!