হরপ্পা সভ্যতার / সিন্ধু সভ্যতার নগর পরিকল্পনা

হরপ্পা সভ্যতার / সিন্ধু সভ্যতার নগর পরিকল্পনা

হরপ্পা সভ্যতায় সুনির্দিষ্ট ছক অনুসরণ করে নগরগুলি নির্মিত হয়েছিল । হরপ্পা , মহেন-জো-দারাে , চান-হু-দারাে , লােথাল , কালিবঙ্গান প্রভৃতি স্থানে পরিকল্পিত নগরের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে । এই সভ্যতায় নগর পরিকল্পনার নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলি চোখে পড়ে —

download 19
হরপ্পা সভ্যতার নগর পরিকল্পনা

হরপ্পা সভ্যতার নগর এলাকা

সিন্ধু অঞ্চলের নগরগুলির দুটি অংশ ছিল —

  • পশ্চিমের উঁচু দুর্গ এলাকা এবং
  • পূর্বের নিম্নাঞ্চল ।

দুর্গ এলাকা প্রাচীর দিয়ে ঘেরা ছিল । সেখানে বাস করতেন কর্তা ব্যক্তিরা আর নিম্নাঞ্চলে বাস করত সাধারণ মানুষ ।

হরপ্পা সভ্যতার ঘরবাড়ি

পােড়া ইটের তৈরি দোতলা-তিনতলা বড়াে বাড়ি হরপ্পা সভ্যতায় যেমন ছিল , তেমনই ছিল মাঝারি ও খুব ছােটো আয়তনের বাড়িও । প্রতিটি বাড়িতেই খােলা উঠোন , শােয়ার ঘর , রান্নাঘর , স্নানঘর ও কুয়াে থাকত । কালিবঙ্গানের কয়েকটি বাড়ি ছাড়া কোথাও বাড়ির দরজা-জানালা সদর রাস্তার দিকে রাখা হয়নি বাড়িতে ঢােকার দরজা থাকত পাশের সরু গলির দিকে । শহরের নিম্নাঞ্চলের একেবারে শেষ প্রান্তে খুপরি জাতীয় কামরাগুলিতে বাস করত শ্রমিক ও দীন-দরিদ্র মানুষ ।

হরপ্পা সভ্যতার রাস্তাঘাট

৯ থেকে ৩৪ ফুট চওড়া রাস্তাগুলি শহরের উত্তর-দক্ষিণ ও পূর্ব-পশ্চিমে সমান্তরালভাবে বিস্তৃত ছিল । রাজপথের দু-পাশে আলাের ব্যবস্থা ছিল ।

হরপ্পা সভ্যতার পয়ঃপ্রণালী

নগরের বাড়িগুলির নােংরা জল পােড়ামাটির নল বেয়ে সদর রাস্তার বড়াে ঢাকা নর্দমায় এসে পড়ত এবং সেখান থেকে নর্দমার মাধ্যমে শহরের বাইরে চলে যেত । ড. ব্যাসাম  লিখেছেন , রােমান সভ্যতার আগে অন্য কোনাে প্রাচীন সভ্যতায় এত উন্নত পয়ঃপ্রণালী ব্যবস্থা আবিষ্কৃত হয়নি ।

হরপ্পা সভ্যতার শস্যাগার ও স্নানাগার

হরপ্পা ও মহেনজোদারােতে আবিষ্কৃত শস্যাগার দুটি ছিল শহর দুটির আবশ্যকীয় খাদ্যের মজুত ভাণ্ডার । মহেনজোদারাের দুর্গ এলাকায় একটি স্নানাগার আবিষ্কৃত হয়েছে । মার্টিমার হুইলার  অবশ্য স্নানাগারটি ধর্মীয় উদ্দেশ্যে নির্মিত হয়েছিল বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন । পরিসমাপ্তিতে বলা যায় , হরপ্পা সভ্যতায় নগর পরিকল্পনার সার্থক রূপায়ণ সম্ভবপর হয়েছিল এক শৃঙ্খলাবদ্ধ পৌর সংস্থার উপস্থিতির কারণে । 

Leave a Comment

error: Content is protected !!