শিক্ষা বিজ্ঞান

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা কি

Contents

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা কি

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা হল শিক্ষার সেই স্তর যেখানে শিশুর সুষ্ঠু বিকাশ ঘটে এবং তাকে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের উপযোগী করে তোলা হয় । অতীতে শিক্ষার প্রস্তুতি পর্ব হিসেবে সাধারণত জন্মের পর থেকে বিদ্যালয়ে ভরতি হওয়ার আগে পর্যন্ত শিশুকে পরিবারের মধ্যেই যে শিক্ষাদান করা হত তা প্রাক প্রাথমিক শিক্ষারই নামান্তর । 

বর্তমানে , নিয়ন্ত্রিত বা প্রথাগত প্রাথমিক শিক্ষা শুরুর আগের স্তরকে প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা বলে । এই শিক্ষা মোটামুটি ভাবে দু-বছর বয়সে শুরু হয় এবং ছয় বছর বয়সের আগে শেষ হয় । প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার বিভিন্ন শ্রেণি হল নার্সারি , কেজি ওয়ান , কেজি টু , কেজি থ্রি কিংবা ইনফ্যান্ট ওয়ান , ইনফ্যান্ট টু , ইনফ্যান্ট থ্রি বা প্রিপেরেটারি ওয়ান , প্রিপেরেটারি টু , প্রিপেরেটারি থ্রি ইত্যাদি । 

কোঠারি কমিশনের মতে প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার উদ্দেশ্য 

কোঠারি কমিশন প্রাপ্রাথমিক শিক্ষার যেসব উদ্দেশ্য স্থির করেছেন সেগুলি হল— 

স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গঠন : 

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য হল শিশুদের মধ্যে সু-অভ্যাস গড়ে তুলতে সহায়তা করা । ছোটো থেকে সু-অভ্যাস গড়ে উঠলে , ভাবী জীবনে তা চরিত্র গঠনে সহায়ক হয় । 

সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলা :

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার আর একটি উদ্দেশ্য হল শিশুদের মধ্যে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলা । সমাজে সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে বাঁচতে হলে প্রয়োজন বিভিন্ন প্রকার সামাজিক গুণের যথাযথ বিকাশ । 

প্রাক্ষোভিক পরিণমনে সাহায্য : 

শৈশবে শিশু তার রাগ , ভয় , হিংসা প্রভৃতি মানসিক আবেগগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না । প্রাক প্রাথমিক স্তরে শিশুকে তার এই সমস্ত আবেগকে যথাযথভাবে নিয়ন্ত্রণ করার শিক্ষা দেওয়া শিক্ষক শিক্ষিকার কর্তব্য । পাশাপাশি শিশুর প্রাক্ষোভিক পরিণমনে সাহায্য করা প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম উদ্দেশ্য । 

ভাষার বিকাশ সাধন :

এই স্তরে শিশুর দৈহিক ও মানসিক বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে ভাষারও দ্রুত বিকাশ ঘটে । শিশু নতুন নতুন শব্দ ব্যবহার করতে শেখে , বাক্য গঠন করতে শেখে । তাই এই স্তরের শিক্ষার উদ্দেশ্য হল শিশুকে শব্দের নির্ভুল উচ্চারণে এবং শব্দের ও ভাষার যথাযথ ব্যবহারে সহায়তা করা । 

সৌন্দর্যবোধের বিকাশ ঘটানো : 

শিশুর মধ্যে সৌন্দর্যবোধের বিকাশ ঘটানো প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা স্তরের আর একটি বিশেষ লক্ষ্য । নানারকম কাজকর্মের মধ্য দিয়ে শিশুর সৌন্দর্যবোধের বিকাশ ঘটলে পরিবেশকে সে সুন্দরভাবে দেখতে শিখবে । 

শৃঙ্খলাবোধের বিকাশ সাধন : 

শৈশবে শিশুর আচরণগুলি অসংযত এবং বিশৃঙ্খল অবস্থায় থাকে । তাই প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা স্তরের উদ্দেশ্য হল শিশুর মধ্যে শৃঙ্খলাবোধ গড়ে তোলা । তবে মনে রাখতে হবে , শিশুর ওপর বাইরে থেকে শৃঙ্খলা চাপিয়ে দেওয়া এই শিক্ষার উদ্দেশ্য নয় । বরং শিশুর মধ্যে স্বতঃস্ফূর্তভাবে শৃঙ্খলাবোধ জাগানোই এই শিক্ষার লক্ষ্য । 

আত্মপ্রকাশে সহায়তা : 

শিশুর স্বাধীন চিন্তা এবং সৃজনশীল ক্ষমতার বিকাশের মাধ্যমে তাকে আত্মপ্রকাশের সুযোগ করে দেওয়া প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার আর একটি বিশেষ লক্ষ্য । 

কৌতূহলের বিকাশ ঘটানো : 

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার আর একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য হল শিশুদের মধ্যে কৌতূহল প্রবৃত্তির বিকাশ ঘটানো ।

দৈহিক বিকাশ সাধন : 

প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম উদ্দেশ্য হল শিশুর দৈহিক বিকাশ । সেই কারণে প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার পাঠক্রমে এমন সব দৈহিক সঞ্চালনমূলক কাজকর্মকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে , যাতে শিশুর অঙ্গ প্রত্যঙ্গ ও ইন্দ্রিয় সুপরিণত এবং শক্তিশালী হয় । 

ওপরের আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় , প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার প্রধান উদ্দেশ্য হল শিক্ষার্থীর তথা শিশুর সর্বাঙ্গীণ এবং যথাযথ বিকাশে সহায়তা করা । শিশুর জন্মগত প্রবণতার ভিত্তিতে তাকে পরিবর্তনশীল পরিবেশের সঙ্গে সংগতি বিধানের উপযোগী করে গড়ে তোলা এই শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য ।

error: Content is protected !!