জাতীয় স্বার্থের প্রকৃতি

জাতীয় স্বার্থের প্রকৃতি

জাতীয় স্বার্থের কোনো সর্বজনগ্রাহ্য অর্থ নির্ধারণ একটি জটিল বিষয় বলে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিশেষজ্ঞরা মনে করেন ।

পল সিবিউরি দুটি অর্থে জাতীয় স্বার্থকে ব্যাখ্যা করেছেন । তাঁর মতে , জাতীয় স্বার্থ হল একটি আদর্শ স্থানীয় উদ্দেশ্যের সমষ্টি । দ্বিতীয়ত , জাতীয় স্বার্থ হল সেই সমস্ত উদ্দেশ্যের সমষ্টি যা জাতি এবং তার নেতৃবৃন্দ অনুসরণ করে থাকেন । 

বাস্তববাদী দৃষ্টিকোণ 

আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বাস্তববাদী দৃষ্টিকোণের প্রবক্তা হ্যানস জে. মরগেনথাউ জাতীয় স্বার্থের ধারণার ব্যাখা দিতে গিয়ে রাজনৈতিক বাস্তবতাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছেন । জাতীয় স্বার্থের বিশ্লেষণে নৈতিক বা মতাদর্শগত মানদণ্ডকে তিনি গ্রহণ করেননি ।  

মরগেনথাউয়ের মতে , ক্ষমতাকেন্দ্রিক স্বার্থের প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রনেতারা তাদের কাজকর্ম পরিচালনা করে থাকেন । তাঁর বক্তব্য হল যে কোনো রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির মূল ভিত্তি হল জাতীয় স্বার্থ । কোনো রাষ্ট্র জাতীয় স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে বিদেশ নীতি ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক স্থির করে না । 

প্রতিটি রাষ্ট্রের কতকগুলি ন্যূনতম স্বার্থ থাকে , যেমন — ভৌগোলিক অখন্ডতা বজায় রাখা , প্রচলিত রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে রক্ষা করা এবং রাষ্ট্রের সংস্কৃতিক সত্তা অক্ষুণ্ণ রাখা । এই সমস্ত স্বার্থ পূরণ করাই যে কোনো রাষ্ট্রের লক্ষ্য । 

মরগেনথাউ মনে করেন জাতীয় স্বার্থের ধারণার সঙ্গে রাষ্ট্রের অস্তিত্বের প্রশ্ন জড়িত রয়েছে । বিশ্বের প্রতিটি রাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ তার সামর্থ্যের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া বাঞ্ছনীয় । 

মরগেনথাউ এই অভিমতও ব্যক্ত করেন যে , জাতীয় স্বার্থের ধারণা শুধু যে নিজের জাতির স্বার্থের ধারণা সম্পর্কে সচেতন করে তাই নয় , অন্য জাতির স্বার্থ সম্পর্কেও ওয়াকিবহাল করে । আধুনিক বিশ্বে এই সংগতি রক্ষাকে রাজনৈতিক নীতিবোধের একটি প্রয়োজনীয় শর্ত এবং রাষ্ট্রের অস্তিত্ব রক্ষার একটি প্রয়োজনীয় উপাদান বলে মনে করা হয় । 

জোসেফ ফ্ল্যাঙ্কেলের অভিমত 

জোসেফ ফ্র্যাঙ্কেলের অভিমত হল , বিদেশনীতি রূপায়ণের ক্ষেত্রে জাতীয় স্বার্থের ভূমিকা প্রধান । অবশ্য জাতীয় স্বার্থের ধারণার কোনো সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা সম্ভব নয় বলেও তিনি মনে করেন । জাতীয় স্বার্থ শুধু যে একটি দেশের আশা আকাঙ্ক্ষার ওপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে তাই নয় , আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি ও অন্য রাষ্ট্রের ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার ওপরেও তা নির্ভরশীল । ফ্র্যাঙ্কেলের মতে , জাতীয় স্বার্থ পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে মূল ধারণা । জাতীয় স্বার্থ হল জাতীয় মূল্যবোধের সমষ্টি ।

জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে জড়িত বিষয় 

আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিশেষজ্ঞদের মতে , জাতীয় স্বার্থের ধারণার সঙ্গে যেসব বিষয় জড়িত তার মধ্যে রয়েছে — জাতীয় নিরাপত্তা , জাতীয় উন্নয়ন , মতাদর্শগত প্রাধান্য প্রতিষ্ঠা প্রভৃতি । অবশ্য জাতীয় মর্যাদা বৃদ্ধি ও প্রভাব বিস্তার , এমনকি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে প্রাধান্য বিস্তারও এর সঙ্গে জড়িত । 

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তীকালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের ক্ষেত্রে মতাদর্শগত প্রাধান্য প্রতিষ্ঠাও স্বার্থের অন্তর্ভুক্ত ছিল । একটি দেশের পররাষ্ট্র বা বিদেশনীতি কোনো পরিস্থিতিতেই জাতীয় স্বার্থের বহির্ভূত হতে পারে না । আন্তঃরাষ্ট্র সম্পর্ক রচনার ক্ষেত্রে জাতীয় স্বার্থ মুখ্য নির্ধারকের ভূমিকা পালন করে । রাষ্ট্রগুলির মধ্যে বিভিন্ন সময়ে যে সামরিক ও অর্থনৈতিক জোট গঠন করা হয় সেক্ষেত্রে জাতীয় স্বার্থের ধারণা প্রাধান্য পায় । 

দৃষ্টান্ত স্বরূপ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তীকালে মার্কিন ও সোভিয়েত নেতৃত্বের দ্বারা গঠিত যথাক্রমে ন্যাটো ( NATO ) এবং ওয়ারশ চুক্তির ( WARSAW Pact ) কথা উল্লেখ করা যায় । সমজাতন্ত্রী চিন ও সোভিয়েত ইউনিয়নের সম্পর্ক , অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র , ফ্রান্স , গ্রেট ব্রিটেন ও পশ্চিম জার্মানির পারস্পরিক সম্পর্কও জাতীয় স্বার্থের ভিত্তিতে চালিত হয় । এ ছাড়া বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তীকালে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলির জোটনিরপেক্ষ নীতি অনুসরণের ঘটনাও জাতীয় স্বার্থের ধারণা দ্বারা প্রভাবিত হয় । 

একমেরু বিশ্বে জাতীয় স্বার্থ 

সাম্প্রতিককালের একমেরু বিশ্বে ( Unipolar world ) আণবিক মারণাস্ত্রের প্রসার , অতিবৃহৎ শক্তি ( Super Power ) হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্য প্রভৃতির প্রেক্ষিতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বিভিন্ন রাষ্ট্র তাদের পররাষ্ট্রনীতি প্রণয়নে জাতীয় স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে নয়া বিশ্ব ব্যবস্থার সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধান করে চলেছে । 

আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে দ্বিমেরু প্রবণতা ( Bi-polarism ) , বহুকেন্দ্রিক প্রবণতা ( Polycentrism ) এবং একমেরু প্রবণতা ( Unipolarism ) এর মূলে জাতীয় স্বার্থের ধারণা সক্রিয় উপাদান হিসেবে কাজ করেছে বলে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের প্রবক্তারা মনে করেন । 

উপসংহার 

অধ্যাপক জোসেফ ফ্র্যাঙ্কেলের মতে , জাতীয় স্বার্থের কোনো বিকল্প নেই । বস্তুত জাতীয় রাষ্ট্রের অস্তিত্বের সঙ্গে জাতীয় স্বার্থের ধারণা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত । এই কারণে আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে জাতীয় স্বার্থের ধারণা আজও অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক ও গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে স্বীকৃত ।

error: Content is protected !!