ঘনবস্তু কাকে বলে

ঘনবস্তু কাকে বলে

যে সকল বস্তু বা পদার্থের দৈর্ঘ্য , প্রস্থ ও উচ্চতা আছে এবং যা কিছু স্থান দখল করে থাকে , তাদেরকে ঘনবস্তু বলে । 

ঘনবস্তুর উদাহরণ — বই , টেবিল , পেন , বল , ব্যাট , ইট , কাঠ , কয়লা , বাস , লুডোর ছক্কা ।

ঘনবস্তুর মাত্রা

কোনো ঘনবস্তুর দৈর্ঘ্য , প্রস্থ এবং উচ্চতা নির্দেশক রৈখিক পরিমাপগুলিকেই বলে ওই ঘনবস্তুর এক একটি মাত্রা ।

IMG 20220608 152448
ঘনবস্তুর মাত্রা

যেমন — একটি ইঁট , এর যে তলটি মাটির সঙ্গে লেগে থাকে তার সবচেয়ে বড়ো ধারটিকে বলে দৈর্ঘ্য ( Length ) , এখানে AB এবং ক্ষুদ্রতর ধারটিকে বলে প্রস্থ ( Breadth ) ( AC ) । এখানে AC বা AB তলদেশ থেকে যে অংশটি লম্বভাবে অবস্থিত তাকে বলে উচ্চতা ( Height ) , এখানে BD । 

লক্ষ্যণীয় : যেহেতু প্রত্যেকটি ঘনবস্তুর দৈর্ঘ্য , প্রস্থ ও উচ্চতা থাকে , তাই ঘনবস্তু মাত্রই ত্রিমাত্রিক । 

ঘনবস্তুর বৈশিষ্ট্য 

( i ) ঘনবস্তু মাত্রই ত্রিমাত্রিক । 

( ii ) ঘনবস্তু এক বা একাধিক তল দ্বারা বেষ্টিত হতে পারে । যেমন — বলের একটি তল , শঙ্কুর দুটি তল , চোঙের তিনটি তল , ত্রিভুজাকৃতি ভূমি বিশিষ্ট পিরামিডের চারটি তল , ত্রিভুজাকৃতি ভূমি বিশিষ্ট প্রিজমের পাঁচটি তল ; বই এর ছয়টি তল , ইত্যাদি । 

( iii ) ঘনবস্তু কিছুটা স্থান জুড়ে থাকবে অর্থাৎ এর আয়তন থাকবে । 

( iv ) ঘনবস্তুর কিছুটা ভর থাকবে । 

( v ) ঘনবস্তু ফাঁপা বা নিরেট হতে পারে ।

ঘনবস্তু কয় প্রকার

আকৃতি অনুযায়ী ঘনবস্তুকে দুটি ভাগে ভাগ করা যায় । ভাগ দুটি হল – ( i ) সুষম ঘনবস্তু ( Regular solid ) এবং ( ii ) অসম ঘনবস্তু ( Irregular solid ) | 

সুষম ঘনবস্তু : 

যে সমস্ত ঘনবস্তুর আকৃতি নির্দিষ্ট , তাদের সুষম ঘনবস্তু বলে । যেমন — বই , ইঁট , বল , লুডোর ছক্কা ইত্যাদি ।

অসম ঘনবস্তু : 

যে সমস্ত ঘনবস্তুর আকৃতি নির্দিষ্ট নয় , তাদের অসম ঘনবস্তু বলে । যেমন — ভাঙা ইট , কয়লা , ভাঙা পাথর , গাছ ইত্যাদি ।

বিভিন্ন সুষম আকৃতির ঘনবস্তু 

সুষম ঘনবস্তুর আকৃতি অনুযায়ী ঘনবস্তুকে সাধারণত ৪ টি ভাগে ভাগ করা যায় । যেমন— 

( 1 ) আয়তঘন বা সমকোণী চৌপল বা ষষ্ঠ তলক ( Rectangular Parallelspiped ) 

( 2 ) ঘনক ( Cube ) 

( 3 ) চতুস্তলক ( Tetrahedron ) 

( 4 ) পিরামিড ( Pyramid ) 

( 5 ) প্রিজম ( Prism ) 

( 6 ) গোলক ( Sphere ) 

( 7 ) চোঙ বা বেলন ( Cylinder ) 

( 8 ) শঙ্কু ( Cone ) 

error: Content is protected !!