ভারতের খনিজ তেল উত্তোলক অঞ্চল

ভারতের খনিজ তেল উত্তোলক অঞ্চল

সম্ভাবনাময় তেল সঞ্চয়কারী টার্শিয়ারি যুগের পাললিক শিলাস্তর ভারতের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে থাকলেও এখনও পর্যন্ত মাত্র ৬ টি অঞ্চলে ব্যাবসায়িকভাবে তেল উত্তোলন করা হয় । এগুলি হল— 

অসমের ঊর্ধ্ব ব্রহ্মপুত্র উপত্যকা 

স্বাধীনতার আগে এটিই ছিল দেশের একমাত্র খনিজ তেল উত্তোলক অঞ্চল । এখানকার তেল উত্তোলনের কেন্দ্রগুলি হল— ডিগবয় , নাহারকাটিয়া , রুদ্রসাগর , মোরান , হুগরীজান , লাকোয়া , বদরপুর প্রভৃতি । এগুলির মধ্যে নাহারকাটিয়া থেকে বর্তমানে বেশি তেল উত্তোলিত হয় । 

গুজরাত 

১৯৫৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এখানে খনিজ তেল আবিষ্কৃত হয় । এখানকার তেলের খনিগুলি হল— ( i ) আঙ্কলেশ্বর অঞ্চলের আঙ্কলেশ্বর ও কোসাম্বা , ( ii ) আমেদাবাদ অঞ্চলের কালোল , সানন্দ , ওয়াভেল , নওয়াগাম ও কাদি এবং ( iii ) কাম্বে অঞ্চলের লুনেজ , বাকল , কাথানা , ধোলকা ও মহেসাণা । এছাড়া গান্ধার নামক স্থানেও তেলখনি আবিষ্কৃত হয়েছে । 

মুম্বাই দরিয়া 

মহারাষ্ট্রের মুম্বাই বন্দর থেকে প্রায় ১০০-১৫০ কিমি উত্তর-পশ্চিমে মুম্বাই দরিয়ায় বর্তমানে ভারতের বৃহত্তম খনিজ তেল উত্তোলক অঞ্চলটি অবস্থিত । এটি সমুদ্রগর্ভের তেলখনি । ১৯৭৪ সালে প্রথম সাগর সম্রাট নামে বিশেষভাবে নির্মিত একটি ভাসমান প্ল্যাটফর্ম বা জাহাজের সাহায্যে এখানকার বিভিন্ন কূপ থেকে তেল উত্তোলনের ব্যবস্থা করা হয় । সম্প্রতি মুম্বাই দরিয়ার আশেপাশে কয়েকটি নতুন জায়গায় খনিজ তেলের সন্ধান পাওয়া গেছে । যেমন — মুম্বাই নগরীর উত্তরে বাসিন এলাকার সমুদ্রগর্ভে তেলখনি আবিষ্কৃত হয়েছে । 

উল্লিখিত তিনটি প্রধান খনিজ তেল উত্তোলক অঞ্চল ছাড়া বর্তমানে ( ৪ ) অরুণাচল প্রদেশের নিম্ন পার্বত্য এলাকা , ( ৫ ) অন্ধ্রপ্রদেশের গোদাবরী বদ্বীপ এলাকা ( কাকিনাড়া থেকে ৭০ কিমি দক্ষিণে ) এবং ( ৬ ) তামিলনাড়ুর কাবেরী অববাহিকার ভুবনগিরি অঞ্চল থেকে অল্প পরিমাণে তেল উত্তোলন করা হয় । এছাড়া ত্রিপুরা সমভূমি অঞ্চলেও সামান্য তেল উত্তোলন করা হয় ।

error: Content is protected !!