পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য

পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য

পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি হল— 

ঋতু পরিবর্তন 

পশ্চিমবঙ্গের প্রধান বৈশিষ্ট্য ঋতু পরিবর্তন । গ্রীষ্মকাল , বর্ষাকাল , শরৎকাল ও শীতকাল — এই চারটি প্রধান ঋতু পশ্চিমবঙ্গের জলবায়ুতে চক্রাকারে আবর্তিত হয় । তবে এখানে শীতের প্রারম্ভে হেমন্তকাল ও গ্রীষ্মের সূচনায় বসন্তকাল নামে আরও দুটি স্বল্পস্থায়ী এবং অপ্রধান ঋতু পরিলক্ষিত হয় । 

ক্রান্তীয় মৌসুমি বায়ুর অত্যধিক প্রভাব 

গ্রীষ্মকালে উষ্ণ-আর্দ্র দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু এবং শীতকালে শীতল ও শুষ্ক উত্তর-পূর্ব মৌসুমি বায়ু এই রাজ্যের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় । এই দুই মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গে গ্রীষ্মকালে উষ্ণ-আর্দ্র এবং শীতকালে শীতল ও শুষ্ক আবহাওয়া বিরাজ করে । 

বিপরীতমুখী বায়ুপ্রবাহ 

পশ্চিমবঙ্গে গ্রীষ্মকালে যেদিক থেকে বায়ু প্রবাহিত হয় , শীতকালে ঠিক তার বিপরীত দিক থেকে বায়ু প্রবাহিত হয় ।

আৰ্দ্ৰ গ্ৰীষ্মকাল , শুষ্ক শীতকাল 

পশ্চিমবঙ্গে বেশিরভাগ বৃষ্টিপাত হয় গ্রীষ্মকালে ( গ্রীষ্মকালের শেষ পর্যায়কে বলে বর্ষাকাল ) । তাই গ্রীষ্মকাল আর্দ্র প্রকৃতির হয় । কিন্তু শীতকালে এখানে বৃষ্টিপাত হয় না বললেই চলে । তাই শীতকাল শুষ্ক প্রকৃতির হয় । 

উত্তরের পার্বত্যভূমি সর্বাধিক বৃষ্টিবহুল অঞ্চল 

দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে রাজ্যের উত্তর প্রান্তে , বিশেষত হিমালয়ের পাদদেশীয় অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয় । পার্বত্য অঞ্চলের বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ প্রায় 400 সেমি । 

পার্বত্য অঞ্চল ব্যতীত অবশিষ্ট এলাকার জলবায়ু সমভাবাপন্ন 

উত্তরবঙ্গের পার্বত্য অঞ্চলে ভূমির উচ্চতা বেশি বলে গ্রীষ্মকাল মনোরম , কিন্তু শীতকাল অত্যন্ত তীব্র । রাজ্যের অবশিষ্ট এলাকায় গ্রীষ্মকাল ও শীতকালের মধ্যে উষ্ণতার খুব বেশি পার্থক্য হয় না , অর্থাৎ মনোরম জলবায়ু বিরাজ করে । তবে পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চলে ( বিশেষত পুরুলিয়া ) গ্রীষ্মকালে উষ্ণতা বেশি থাকে ।

error: Content is protected !!