তড়িৎ পরিবাহী কাকে বলে

তড়িৎ পরিবাহী কাকে বলে 

যে সব পদার্থের মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহিত হতে পারে বা চলাচল করতে পারে তাদের তড়িৎ পরিবাহী ( conductors ) বলে । 

তড়িৎ পরিবাহীর উদাহরণ : 

তামা , সোনা , রুপা , অ্যালুমিনিয়াম , গ্রাফাইট , গ্যাস কার্বন , অ্যাসিড , ক্ষার ও লবণের জলীয় দ্রবণ ইত্যাদি ।

ধাতব তড়িৎ পরিবাহী 

যেসব ধাতব পদার্থের মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহিত হলে তাদের কোনো স্থায়ী রাসায়নিক পরিবর্তন হয় না , কেবল উষ্ণতার পরিবর্তন হয় এবং তড়িৎ প্রবাহ বন্ধ হলে যারা আবার আগের উষ্ণতায় ফিরে আসে , সেইসব ধাতব পদার্থকে ধাতব তড়িৎ পরিবাহী পদার্থ বলে । 

উদাহরণ : সোনা , রুপা , তামা , অ্যালুমিনিয়াম , পারদ ইত্যাদি । 

অধাতব তড়িৎ পরিবাহী 

যেসব অধাতব পদার্থের মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহিত হলে তাদের কোনো স্থায়ী রাসায়নিক পরিবর্তন হয় না এবং তড়িৎ প্রবাহ বন্ধ হলে তারা আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে , তাদের অধাতব তড়িৎ পরিবাহী বলে । এক্ষেত্রে তড়িৎপ্রবাহের ফলে কেবলমাত্র উষ্ণতার পরিবর্তন ঘটে থাকে । 

উদাহরণ : গ্রাফাইট , গ্যাস কার্বন । 

তড়িৎ পরিবাহী অধাতুর নাম

তড়িৎ পরিবাহী অধাতু হলো  গ্রাফাইট , গ্যাস কার্বন প্রভৃতি । 

তড়িৎ পরিবাহীতার উপর উষ্ণতার প্রভাব 

সাধারণত ধাতব পরিবাহীর উষ্ণতা বাড়ালে রোধ বাড়ে , ফলে তড়িৎ পরিবাহিতা কমে । কিন্তু কার্বন , সিলিকন , তড়িদ বিশ্লেষ্য পদার্থ ইত্যাদির উষ্ণতা বৃদ্ধিতে তড়িৎ পরিবাহিতাও বৃদ্ধি পায় ।

আরো পড়ুন : তড়িৎ অপরিবাহী কাকে বলে

তড়িৎ অবিশ্লেষ্য পদার্থ কাকে বলে

তড়িৎ বিশ্লেষ্য পদার্থ কাকে বলে

তাপ কাকে বলে/তাপের প্রকারভেদ

error: Content is protected !!