ক্রোমাটোগ্রাফি কাকে বলে

ক্রোমাটোগ্রাফি কাকে বলে

ক্রোমাটোগ্রাফি হল মিশ্রণ থেকে উপাদান পৃথকীকরণের একটি বিশেষ পদ্ধতি । 1906 খ্রিস্টাব্দে রুশ বিজ্ঞানী মিখাইল টিভেত ( Mikhail Tsvett ) এই পদ্ধতি আবিষ্কার করেন । ক্রোমাটোগ্রাফি শব্দের অর্থ ‘ রঙিন লেখা ’ ( colour writing ) । কোনো মিশ্রণ থেকে রঙিন উপাদানগুলিকে পৃথক করার কাজে মূলত এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় । মিশ্রণের পরিমাণ খুব কম হলে এই পদ্ধতি বিশেষভাবে উপযোগী হয় । 

পেপার ক্রোমাটোগ্রাফি পদ্ধতি

ক্রোমাটোগ্রাফির নানা রকম কৌশল আছে । তার মধ্যে পেপার ক্রোমাটোগ্রাফির সাহায্যে কালির রঙিন উপাদানগুলিকে পৃথক করার দুইটি পদ্ধতি এখানে আলোচিত হল : 

পদ্ধতি 1 : 

IMG ২০২২০৩১৩ ২১৪৫০৪1
পেপার ক্রোমাটোগ্রাফি পদ্ধতি

একটি ফিল্টার পেপারের মাঝখানে একটি ছিদ্র করা হল । আরেকটি সরু ও লম্বা ফিল্টার পেপার পলতের মতো পাকিয়ে এই ছিদ্রের মধ্যে আটকে দেওয়া হল । ছিদ্রের কাছাকাছি কালো কালির একটি ছোটো দাগ দেওয়া হল । একটি পেট্রি ডিশ ( petri dish ) বা বাষ্পীভবন ডিশ ( evaporating dish ) অর্ধেক জল ভর্তি করে তার উপর ফিল্টার পেপারটি বসিয়ে দেওয়া হল ।

প্রায় আধঘন্টা এই অবস্থায় থাকলে ফিল্টার কাগজের উপর কেন্দ্র থেকে বিভিন্ন দূরত্বে কালির বিভিন্ন উপাদানের কয়েকটি রঙিন পটি পাওয়া যায় । পলতে বেয়ে উঠে জল ফিল্টার পেপার বরাবর ছড়িয়ে পড়ে এবং সাথে সাথে কালির রঙিন উপাদানগুলিকেও বয়ে নিয়ে যায় । কালির যে উপাদান পেপারের তন্তুর সাথে শক্তভাবে আটকে থাকে সেটি সবচেয়ে কম দূরত্ব যায় এবং যেটি আলগাভাবে আটকে থাকে সেটি সবচেয়ে বেশি দূরত্ব যায় । এইভাবে রঙের কণাগুলির বিভিন্ন গতির জন্য তারা আলাদা হয়ে পড়ে । 

পদ্ধতি 2 : 

IMG ২০২২০৩১৩ ২১৩৪৪৬1
পেপার ক্রোমাটোগ্রাফি পদ্ধতি

একটি স্ফুটন নল ( boiling tube ) -এ কিছু পরিমাণ উপযুক্ত দ্রাবক ( solvent ) নেওয়া হল । কালির উপাদান পৃথক করার জন্য এক আয়তন মিথানল ও নয় আয়তন জলের মিশ্রণ নেওয়া যায় । একটি সরু ও লম্বা ফিল্টার পেপারের উপর কালো কালির একটি ছোটো দাগ দিয়ে এটি স্ফুটন নলের কর্কের সাথে আটকে দেওয়া হল যাতে পেপারের নিম্ন প্রান্ত দ্রাবকের মধ্যে ডুবে থাকে ।

কৈশিক নলের ক্রিয়ায় ( capillary action ) দ্রাবক পেপার বেয়ে উপরে ওঠে এবং কালির রঙকে দ্রবীভূত করে উপরে বয়ে নিয়ে যায় । বিভিন্ন রঙিন উপাদান বিভিন্ন বেগে উপরে ওঠে । ফলে তারা পেপারের উপর আলাদা আলাদা হয়ে পড়ে । অ্যাসিটোন দ্রাবক ব্যবহার করে এই পদ্ধতিতে ক্লোরোফিলের রঙিন উপাদানগুলিকে পৃথক করা যায় । অ্যামাইনো অ্যাসিডের মিশ্রণ থেকে উপাদানগুলি পৃথক করার কাজেও এই পেপার ক্রোমাটোগ্রাফি ব্যবহার করা হয় ।

error: Content is protected !!