মুঘল সম্রাট বাবরের কৃতিত্ব

মুঘল সম্রাট বাবরের কৃতিত্ব 

ভারতে মুসলমান শাসনের দ্বিতীয় পর্বের বা মোগল সাম্রাজ্যের সূচনা করেন জহিরুদ্দিন মুহাম্মদ বাবর  । শুরু হয় ভারত ইতিহাসের এক নতুন অধ্যায় । 

পানিপথের প্রথম যুদ্ধে জয়লাভ 

দিল্লির সুলতান ইব্রাহিম লোদির সঙ্গে পাঞ্জাবের শাসন কর্তা দৌলত খাঁ -র বিরোধ দেখা দিলে দৌলত খাঁ ইব্রাহিমকে জব্দ করার জন্য বাবরকে ভারত আক্রমণের প্ররোচনা দেন । বাবর কালবিলম্ব না করে বিশাল বাহিনীসহ ভারত আক্রমণ করেন । দিল্লির সুলতান ইব্রাহিম লোদি বাবরকে বাধা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হন । পানিপথের প্রান্তরে উভয় পক্ষের যুদ্ধ হয় ( ১৫২৬ খ্রি. ) । এটি ‘ পানিপথের প্রথম যুদ্ধ ‘ নামে পরিচিত । যুদ্ধে ইব্রাহিমকে হত্যা করে বাবর দিল্লির সিংহাসন দখল করেন । 

খানুয়ার যুদ্ধে জয়লাভ 

পরের বছরেই বাবর মেবারের রানা সংগ্রাম সিংহের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধারণ করেন । ১৫২৭ এর ১৬ মার্চ খানুয়ার প্রান্তরে উভয় পক্ষ মুখোমুখি হয় । রাজপুতগণ অসম সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ করেও পিছু হটতে বাধ্য হয় । রানা সিংহ কোনোক্রমে পালিয়ে গিয়ে প্রাণরক্ষা করেন । 

ঘর্ঘরার যুদ্ধে জয়লাভ 

রাজপুতদের শক্তি খর্ব করার পর বাবর আফগানদের প্রতি নজর দেন । তখন ইব্রাহিম লোদির ভাই মাহমুদ লোদি আফগান সর্দারদের সংঘবদ্ধ করে বাবরের বিরোধিতা করার জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলেন । পাটনার উত্তরে গঙ্গা ও ঘর্ঘরা নদীর সংগমস্থলে মোগল ও আফগান বাহিনীর সংঘর্ষ হয় ( ১৫২৯ খ্রি. ) । ঘর্ঘরা যুদ্ধে আফগানরা পরাজিত হয় । এই যুদ্ধের একবছর পর ১৫৩০ খ্রিস্টাব্দে বাবর মৃত্যুবরণ করেন । 

মূল্যায়ন 

মোগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা রূপে বাবরের নাম ভারত ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে আছে । 

( i ) ভারতের প্রতিষ্ঠিত শক্তি আফগান ও রাজপুতদের পরাজিত করে তিনি সামরিক দক্ষতার পরিচয় দেন । সুলতানি শাসনের ভাঙন ভারতের রাজনীতিতে যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছিল , বাবর তার অবসান ঘটান ।তবে বাবরকে মোগল সাম্রাজ্যের প্রকৃত প্রতিষ্ঠাতা বলা যায় কি না তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে । তবে বাবরকে সামরিক অর্থে মোগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা বলা যায় । 

( ii ) মোগলদের নেতৃত্বে ভারতে যে সাংস্কৃতিক বিকাশের সূচনা হয় , তারও পথিকৃৎ ছিলেন বাবর ।

error: Content is protected !!