দেশীয় বস্ত্র শিল্পের অবনতির কারণ

দেশীয় বস্ত্র শিল্পের অবনতির কারণ 

ভারতে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ক্ষমতা দখলের সবচেয়ে বিষময় ফল ছিল চিরাচরিত ও ঐতিহ্যমণ্ডিত ভারতীয় বস্ত্র শিল্পের অবনতি । অর্থনৈতিক ভাষায় একে অবশিল্পায়ন বলা হয় । ভারতীয় বস্ত্র শিল্পের অবনতির কারণগুলি হল— 

ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ক্ষমতা দখল 

১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দে কোম্পানির রাজনৈতিক ক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে দেশীয় বস্ত্রশিল্পের অবনতি শুরু হয় । ‘ ফারুকশিয়ার ফরমান ‘ লাভ করে কোম্পানি ও তাঁর কর্মচারীরা বিনা শুল্কে ব্যাবসা শুরু করে । এই অসম প্রতিযোগিতায় ভারতীয় বস্ত্রশিল্পের অবনতি ঘটতে থাকে । 

ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লব

শিল্পবিপ্লবের ফলে ইংল্যান্ডের বস্ত্র শিল্পে ব্যাপক উৎপাদন বৃদ্ধি পায় । কোম্পানি ইংল্যান্ডের কলে তৈরি বস্ত্রে ভারতীয় বাজার দখল করে নেয় । ভারত থেকে বস্ত্র শিল্পের কাঁচামাল তুলো ইংল্যান্ডে পাঠিয়ে দেয় । 

অসম শুল্কনীতি 

কোম্পানি ১৮১৫ খ্রিস্টাব্দে এক আইন জারি করে ইংল্যান্ডের কলে তৈরি কাপড়ের ওপর ২৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক ধার্য করে । অপরদিকে ইংল্যান্ডে ভারতীয় বস্ত্রের প্রবেশ বন্ধ করার জন্য সেখানে মসলিনের ওপর ১৭৯৭ খ্রিস্টাব্দে ১৮ শতাংশ এবং ১৮২৩ খ্রিস্টাব্দে ৩৭ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে । ফলস্বরূপ ভারতীয় বস্ত্রশিল্প চরম সংকটে পড়ে । 

প্রাকৃতিক বিপর্যয়

ছিয়াত্তরের মন্বন্তর , ১৭৮৭-৮৮ খ্রিস্টাব্দের ভয়াবহ বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়ে বহু তাঁতির মৃত্যু হলে তাঁত শিল্প ধ্বংসের পথে এগিয়ে যায় এবং বস্ত্রশিল্প কেন্দ্রিক শহরগুলি , যেমন — সিলেট , রংপুর , মালদা , নদিয়া , চট্টগ্রাম ইত্যাদির ঐতিহ্য ধ্বংস হয়ে যায় । 

পরিশেষে বলা যায় , ব্রিটিশ সরকারের নির্লজ্জ সাম্রাজ্যবাদী নীতির ফলে ভারতীয় বস্ত্র শিল্পের অবনতি ঘটে । একদিকে ভারতে ইংরেজ শাসন , অপরদিকে ইংল্যান্ডে শিল্পবিপ্লব ভারতে বস্ত্র শিল্পের ওপর সাঁড়াশি আক্রমণ শুরু করে । অর্থনীতিবিদ রমেশচন্দ্র দত্ত ভারতীয় বস্ত্র শিল্পের ধ্বংসকে ইতিহাসের সবচেয়ে দুঃখজনক ঘটনা বলে বর্ণনা করেছেন ।

error: Content is protected !!