স্নায়ু গ্রন্থি কাকে বলে

স্নায়ু গ্রন্থি কাকে বলে

কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের বাইরে কয়েকটি স্নায়ুকোশের কোশদেহ মিলিত হয়ে যে গ্রন্থি সৃষ্টি করে তাকে স্নায়ুগ্রন্থি বা নার্ভ গ্যাংলিয়ন বলে । 

স্নায়ু গ্রন্থির প্রকারভেদ

অবস্থান অনুসারে স্নায়ুগ্রন্থি প্রধানত দু-প্রকারের হয় , যথা—( i ) সেরিব্রোস্পাইনাল স্নায়ুগ্রন্থি , ( ii ) স্বয়ংক্রিয় বা অটোনমিক স্নায়ু গ্রন্থি ।

সেরিব্রোস্পাইনাল স্নায়ুগ্রন্থি : 

সুষুম্না স্নায়ুর পৃষ্ঠীয় মূলে এবং করোটি স্নায়ুর সংবেদন মূলে যুক্ত স্নায়ুগ্রন্থিকে সেরিব্রোস্পাইনাল স্নায়ুগ্রন্থি বলে । 

স্বয়ংক্রিয় বা অটোনমিক স্নায়ু গ্রন্থি :

যে স্নায়ুগ্রন্থির অভ্যন্তরে স্বয়ংক্রিয় স্নায়ুতন্ত্রের অন্তর্গত প্রাক্ স্নায়ুগ্রন্থিজ তন্তু এবং পশ্চাৎ স্নায়ু গ্রন্থিজ তন্তু স্নায়ু সন্নিধি স্থাপন করে , তাকে স্বয়ংক্রিয় বা অটোনমিক স্নায়ু গ্রন্থি বলে । 

স্নায়ুগ্রন্থির কাজ

( ক ) নিউরোসিক্রেটরি পদার্থ নিঃসৃত করা এবং ( খ ) স্নায়ু উৎপন্ন করা ।

error: Content is protected !!