পায়রার অভিযোজন

পায়রার অভিযোজন

IMG ২০২১০৭১২ ১১১৮৪৯1
পায়রার অভিযোজন

পায়রা বায়বীয় পরিবেশে স্বাভাবিকভাবে উড়তে সক্ষম । বায়বীয় পরিবেশে যারা বিচরণ করতে পারে তাদের খেচর বলে । পায়রা মুখ্য বা প্রাথমিক খেচর প্রাণী এবং বায়বীয় পরিবেশে প্রকৃত উড্ডয়নের জন্য পায়রার দেহে যে অভিযােজনগুলি দেখা যায় , তা নিম্নরূপ ㅡ

দেহাকৃতি :

বায়বীয় পরিবেশে স্বাভাবিক উড্ডয়নের জন্য পায়রার দেহ মাকুর ন্যায় অর্থাৎ দেহের অগ্র এবং পশ্চাদ্ভাগ সরু এবং মধ্যভাগ অপেক্ষাকৃত চওড়া । 

ডানা :

পায়রার অগ্রপদ দুটি ডানায় রূপান্তরিত হয়েছে । দুটো ডানা সামনের দিকে চওড়া এবং পিছনের দিকে ক্রমশ সরু । ডানার ওপরের পৃষ্ঠ উত্তল এবং নিম্নপৃষ্ঠ অবতল । 

দেহের আচ্ছাদন বা পালক : 

পায়রার সমগ্র দেহ পালকে আবৃত । পায়রাকে ডানার 23 টি রেমিজেস পালক বায়ুতে উড়তে এবং লেজের 12 টি রেকট্রিসেস পালক দিক পরিবর্তনে সাহায্য করে । পালকের গঠন বিন্যাসও পায়রাকে উড়তে সাহায্য করে । প্রতিটি পালকের মাঝের দণ্ডটিকে র‍্যাকিস বা স্যাফট বলে । মধ্যদণ্ডের শেষপ্রান্তের নগ্ন অংশকে কুইল বা ক্যালামাস বলে । মধ্যদণ্ডের দুপাশে সরু সরু চুলের মতাে অংশকে বারব বলে । প্রতিটি বারবের দুপাশে দুসারি বারবিউল থাকে , প্রতিটি বারবিউল হুকের মতাে বারবিসেল – এর সাহায্যে পরস্পর আটকে থেকে প্রতিটি পালককে পাখার মতাে শক্ত করে , ফলে উড়বার সময় বায়ু পালকগুলিকে ভেদ করতে পারে না । দেহের তাপমাত্রা সংরক্ষণেও পালক সাহায্য করে । 

বায়ুথলি : 

জলে এবং স্থলে গমনের থেকে বায়ুতে উড্ডয়নে অধিক পরিমাণে শক্তির প্রয়ােজন । অধিক শক্তি উৎপন্নের জন্য প্রয়ােজন অধিক অক্সিজেন , পায়রার দুটি ফুসফুসের সঙ্গে কয়েকটি বায়ুথলি সংলগ্ন থাকে । এই বায়ুথলির অক্সিজেন সমৃদ্ধ বায়ু শক্তি উৎপাদনের জন্য বেশি অক্সিজেন সরবরাহ করে । বায়ুথলি বায়ুপূর্ণ থাকায় দেহের প্লবতা বৃদ্ধি পায় ফলে উড়তে সুবিধা হয় , এছাড়া বায়ুথলি দেহের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করতেও সাহায্য করে ।

হৃৎপিণ্ড : 

দেহকোশে বেশি পরিমাণে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য হৃৎপিণ্ডের আকার দেহের তুলনায় বড়াে এবং চার প্রকোষ্ঠযুক্ত উন্নতমানের হয় । 

হালকা মজবুত দেহ : 

বায়ুতে স্বাভাবিকভাবে উড়তে গেলে দেহ হালকা হওয়া প্রয়ােজন । দেহকে হালকা করার জন্য করােটির অস্থিগুলি পাতলা কাগজের মতাে এবং সংযােগ দাগবিহীন , দেহের অন্যান্য অস্থিতে বায়ুপূর্ণ গহ্বর বর্তমান । এছাড়াও পায়রা দেহে দন্ত , পাকস্থলী , পিত্তথলি , মূত্রথলি , মলাশয় থাকে না , স্ত্রী পায়রার ক্ষেত্রে ডানদিকের ডিম্বাশয় এবং ডিম্বনালি থাকে না , এই অঙ্গগুলি না থাকায় পায়রার দেহ আরও হালকা হয় । 

অন্তঃকঙ্কালের গঠন : 

উরঃশ্চক্রটি উড্ডয়নের সময় ডানা সংলগ্ন পেশিগুলির অধিক চাপ সহ্য করার জন্য বেশ মজবুত হয় । পশ্চাৎ থােরাসিক লাম্বার , স্যাক্রাল এবং কয়েকটি কডাল কশেরুকার সমন্বয়ে গঠিত সিনস্যাক্রাম অন্তঃকঙ্কালের গঠন মজবুত করেছে । মজবুত এবং বৃহৎ আকারের উড্ডয়ন পেশিকে উপযুক্ত পরিমাণ স্থান দেওয়ার জন্য স্টারনাম বা উরঃফলক নৌকার আকৃতি ধারণ করেছে

সুগঠিত মস্তক : 

পায়রার মস্তিষ্কের গুরু মস্তিষ্ক , অপটিকলােব এবং লঘু মস্তিষ্ক সুগঠিত হয় । লঘু মস্তিষ্ক সুগঠিত হওয়ায় উড্ডয়নের সময় দেহের ভারসাম্য রক্ষা করতে সুবিধা হয় । 

চঞ্চু : 

দেহের ওজন কমানাে , খাদ্য সংগ্রহ , এবং আত্মরক্ষার জন্য পায়রার চোয়াল দন্তহীন চঞ্চুতে পরিণত হয়েছে । 

গ্রীবা : 

খাদ্যগ্রহণের সুবিধার জন্য এদের গ্রীবাটি নমনীয় , দীর্ঘ এবং সরু হয় । আত্মরক্ষার জন্য এদের গ্রীবাটি মস্তককে 180° কোণে ঘােরাতে পারে ।

পেশি : 

স্বাভাবিকভাবে অনেকক্ষণ উড্ডয়নের জন্য বক্ষপেশি খুব মজবুত হয় । পায়রা ডানাদুটিকে পেক্টোরালিস মেজর , পেক্টোরালিস মাইনর , কোরাকোব্রাকিয়ালিস প্রভৃতি বক্ষ পেশির সাহায্যে পর্যায়ক্রমে ওপর নীচে সারিত করে দীর্ঘক্ষণ ধরে উড়তে পারে । 

ক্রপ এবং গিজার্ডের উপস্থিতি : 

প্রয়ােজনে খাদ্য সঞ্চয় করে রাখার জন্য পায়রার পৌষ্টিকতন্ত্রে খাদ্য সঞ্চয়ী থলি বা ক্রপ থাকে এবং পৌষ্টিকতন্ত্রে গিজার্ড নামক অঙ্গের দ্বারা শক্ত খাদ্যের টুকরাে পেষণ করে । 

তীক্ষ দৃষ্টি : 

উড্ডয়নের সময় তীক্ষ দৃষ্টির প্রয়ােজন হওয়ায় চোখ দুটি বেশ বড়াে এবং অক্ষিপটে পেকটিন থাকে । পেকটিনের উপস্থিতির জন্য দৃষ্টির তীক্ষ্ণতা বৃদ্ধি পায় । 

রক্ত : 

অধিক পরিমাণে অক্সিজেন পরিবহনের জন্য পায়রার রক্তের লােহিত কনিকার আকৃতি স্তন্যপায়ী প্রাণীদের তুলনায় বড়াে হয় এবং রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ থাকে , ফলে কোশে অধিক খাদ্য জারিত হয়ে প্রচুর শক্তি উৎপন্ন হয় যা উড্ডয়নের সময় কাজে লাগে ।

error: Content is protected !!