বাস্তুতন্ত্র কাকে বলে

বাস্তুতন্ত্র কাকে বলে

বাস্তুতন্ত্র কাকে বলে

কোনাে একটি নির্দিষ্ট স্থানে বসবাসকারী জীবগােষ্ঠীগুলির মধ্যে একে অপরের সঙ্গে এবং ওই বসতি অঞ্চলের জড় পদার্থগুলির সঙ্গে জীবগােষ্ঠীগুলির প্রতিটি সদস্যের মিথস্ক্রিয়ার ( Interaction ) মাধ্যমে যে অনুকূল বসবাসরীতি গড়ে ওঠে , ইকোসিস্টেম বা বাস্তুতন্ত্র বা বাস্তুরীতি বলে ।

বাস্তুতন্ত্রের ধর্ম বা বৈশিষ্ট্য

বাস্তুতন্ত্রের ধর্ম বা বৈশিষ্ট্য বাস্তুতন্ত্রের ধর্মগুলি হল— 

i. বাস্তুতন্ত্রের একটি নির্দিষ্ট এলাকা আছে । 

ii. বাস্তুতন্ত্রকে সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে পর্যবেক্ষণ করা হয় । 

iii. এখানে শক্তি ও পদার্থের সরবরাহ এবং উৎপাদন সবসময় ঘটতে থাকে । 

iv. শক্তি বাস্তুতন্ত্র কাজ করার পর এখান থেকে বেরিয়ে যায় , তাই এটিকে একটি উন্মুক্ত প্রণালী বলা হয় । 

v. বাস্তুতন্ত্র আকারে খুব ছােটো থেকে সুবৃহৎ হতে পারে । বড়াে বাস্তুতন্ত্রে জীববৈচিত্র্য বেশি হয় । 

vi. বাস্তুতন্ত্রে শক্তির একমাত্র উৎস হল সূর্যালােক । 

vii. খাদ্যশৃঙ্খলের মাধ্যমে শক্তি সরবরাহে বিঘ্ন না ঘটলে বাস্তুতন্ত্র স্থায়ী ভারসাম্যের দিকে এগিয়ে যায় । 

viii. বাস্তুতন্ত্র সুসংগঠিত ও নির্দিষ্ট কাঠামাে বিশিষ্ট হয় । 

বাস্তুতন্ত্রের গুরুত্ব বা তাৎপর্য

বাস্তুতন্ত্র প্রাকৃতিক পরিবেশ তথা জীবমণ্ডলের অন্যতম মূল একক । তাই এর গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনেক । যেমন— 

i. বাস্তুতন্ত্র অধ্যয়ন করলে বিভিন্ন পরিবেশ এবং ওই পরিবেশের জীবগােষ্ঠীর সম্বন্ধে জ্ঞান লাভ করা যায় । 

ii. বাতাসে কার্বন ডাইঅক্সাইড ও অক্সিজেনের ভারসাম্য বাস্তুতন্ত্রের সবুজ উদ্ভিদের ওপর নির্ভর করে । তাই বাস্তুতন্ত্রের কার্যকারিতা তাৎপর্যপূর্ণ । 

iii. পরিবেশ দূষণ রােধ ও সেই সঙ্গে প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণের জন্য বাস্তুতন্ত্রকে কাজে লাগানাে যায় । 

iv. আদর্শ বাস্তুতন্ত্রে খরা ও বন্যার প্রকোপ থাকে না । 

v. উদ্ভিদ ও প্রাণীর বাসস্থানের সুরক্ষা , জমির উর্বরতা বৃদ্ধি ও ভূমিক্ষয় রােধ আদর্শ বাস্তুতন্ত্রে স্বাভাবিক নিয়মে হয়ে থাকে । 

vi. বাস্তুতন্ত্রের সঠিক মূল্যায়ন করলে উন্নয়নমূলক পরিকল্পনা , বনভূমির গঠন ও সুরক্ষা , বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ইত্যাদির সফল রূপায়ণ সম্ভব । 

vii. বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্য বজায় থাকলে উদ্ভিদ ও প্রাণী প্রজাতি লােপ পায় না ।

বাস্তুতন্ত্রের বিভিন্ন উপাদান 

বাস্তুতন্ত্রের উপাদানগুলিকে প্রধানত দুভাগে ভাগ করা হয় , যথা — 1. জড় বা অ্যাবায়ােটিক উপাদান । 2. সজীব বা বায়ােটিক উপাদান ।

জড় বা আবায়ােটিক উপাদান :

বাস্তুতন্ত্রের জড় বা অ্যাবায়ােটিক উপাদানগুলিকে প্রধানত তিন ভাগে ভাগ করা হয় , যথা —

ভৌত অবস্থা : সূর্যালােক , বায়ুপ্রবাহ , উষ্ণতা , বৃষ্টিপাতের পরিমাণ , বায়ুর আর্দ্রতা , বায়ুর চাপ , মাটির গঠনগত বৈশিষ্ট্য ও প্রকৃতি , কোন স্থানের অবস্থান , পর্বতমালার অবস্থান প্রভৃতি । 

অজৈব উপাদান : জল , বিভিন্ন প্রকার খনিজ পদার্থ ( যথা — ক্যালশিয়াম , ম্যাগনেসিয়াম , ফসফরাস , সালফার প্রভৃতি ) , গ্যাসীয় পদার্থ ( যথা — অক্সিজেন , কার্বন ডাইঅক্সাইড , নাইট্রোজেন প্রভূতি । ) 

জৈব উপাদান : জীবের দ্বারা পরিত্যক্ত বর্জ্য পদার্থের মধ্যে উপস্থিত জৈব পদার্থ এবং মৃত জীবদেহের মধ্যস্থিত জৈব পদার্থকে একত্রে পরিবেশের জৈব উপাদান বলে । 

সজীব বা বায়ােটিক উপাদান :

পরিবেশে উপস্থিত সজীব উপাদানগুলিকে কার্যকারিতার ওপর ভিত্তি করে প্রধানত দুটি শ্রেণিতে ভাগ করা হয়- ( i ) উৎপাদক ও ( ii ) পরভােজী উপাদান । 

উৎপাদক : স্বভােজী জীবগােষ্ঠী । 

পরভােজী উপাদান : পরভোেজী উপাদান আকৃতি এবং খাদ্যের প্রকৃতি অনুসারে দু-প্রকার হয় —

( i ) ম্যাক্রোকনজিউমার ( ii ) মাইক্রোকনজিউমার । 

ম্যাক্রোকনজিউমার : এদের তিনটি শ্রেণিতে ভাগ করা হয়— ( ক ) প্রাথমিক খাদক , ( খ ) গৌণ খাদক এবং ( গ ) প্রগৌণ খাদক । 

মাইক্রোকনজিউমার : খাদ্যের প্রকৃতি অনুযায়ী দুভাগে ভাগ করা হয় — ( ক ) বিয়ােজক ও ( খ ) পরিবর্তক ।

error: Content is protected !!