সঞ্চয়ী মূল কাকে বলে

সঞ্চয়ী মূল কাকে বলে

Screenshot ২০২১০৬১০ ১১১৬৫৮
সঞ্চয়ী মূল কাকে বলে

যেসব প্রধান মূল ভবিষ্যতের জন্য খাদ্য সঞ্চয় করে রাখার জন্য পরিবর্তিত ও স্থূল হয়ে বিভিন্ন আকৃতি ধারণ করে তাদের সঞ্চয়ী মূল বা ভান্ডার মূল ( Storage root ) বলে । খাদ্য সঞ্চয়ের পরিমাণ সব জায়গায় সমান না হওয়ার জন্য এদের আকৃতিরও তারতম্য দেখা যায় । আকৃতি অনুসারে সঞ্চয়ী মূল বা ভান্ডার মূল বিভিন্ন প্রকারের হয় ।

মুলাকার বা ফিউসিফরম 

স্ফীত প্রধান মূলটির মধ্যস্থল স্ফীত হয় এবং এর দু-প্রান্ত সরু হয় । 

বৈশিষ্ট্য — ( i ) মূলের উপরের দিকে বীজপত্রাবকান্ড ( Hypocotyl ) ও নীচের অংশ প্রধান মূল । ( ii ) মূলটির মাঝের অংশে খাদ্য সঞ্চয়ের পরিমাণ বেশি এবং দুই প্রান্তে কম বলে মধ্যবর্তী অংশ স্ফীত এবং ক্রমশ উভয় প্রান্ত সরু হয়ে মাকু আকৃতির হয় । ( iii ) স্ফীত মূলটির চারপাশ থেকে শাখামূল উৎপন্ন হয় । ( iv ) মূলের রং সাদা বা লাল হয় ।

উদাহরণ — মুলাে ( Raphanus sativus ) ।

কাজ — খাদ্য সঞ্চয় রাখা ।

শালগমাকার বা ন্যাপিফরম

এক্ষেত্রে প্রধান মূলের উপরিভাগ স্ফীত হয়ে গােলাকার ধারণ করে এবং নিম্নভাগ হঠাৎ সরু হয়ে লেজের আকার ধারণ করে ।

বৈশিষ্ট্য — ( i ) মূলের বেশির ভাগ অংশ খাদ্য সঞ্চয় করে ফুলে গােলাকার হয় । কিন্তু নীচের দিকে হঠাৎ সরু হয়ে লেজের আকার ধারণ করে । এই সরু অংশে খাদ্য সঞ্চিত হয় না । ( ii ) গােলাকার অংশের উপরে হল বীজপত্রাবকান্ড ও নীচের অংশ হল প্রধান মূল । ( ii ) গােলাকার মূলের নীচের দিকে ও সরু অংশে অসংখ্য শাখামুল থাকে । 

উদাহরণ — শালগম ( Brassica napus ) , বিট ( Beta vulgaris ) ইত্যাদি ।

কাজ — খাদ্য সঞ্চিত রাখা । 

শাঙ্কবাকার বা কনিক্যাল

এইপ্রকার প্রধান মূলের উপরিভাগ সর্বাপেক্ষা স্ফীত হয় এবং নীচের অংশ ক্রমশ সরু হয়ে শঙ্কুর আকার ধারণ করে ।

বৈশিষ্ট্য — ( i ) এই ধরনের মূলের উপরের দিক মােটা ও নীচের দিক ক্রমশ সরু হয়ে শাঙ্কব আকার ধারণ করে । এই মূলের উপরের দিকে খাদ্য সঞ্চয়ের পরিমাণ বেশি হয় । ( ii ) মূলের উপরের দিকে বীজপত্রাবকান্ড ও নীচের অংশে প্রধান মূল থাকে । ( iii ) মূলের চারপাশে কিছু শাখামূল গঠিত হয় । ( iv ) মূলের রঙ কাঁচা হলুদের মতাে বা গাঢ় বর্ণের হয় । 

উদাহরণ — গাজর ( Daucus carota ) ।

কাজ — খাদ্য সঞ্চয় করা ।

error: Content is protected !!