একটি আদর্শ মূলের বিভিন্ন অংশ

একটি আদর্শ মূলের বিভিন্ন অংশ

Screenshot ২০২১০৬০৯ ১৫২৭১২
একটি আদর্শ মূলের বিভিন্ন অংশ

একটি আদর্শ মূল ও তার শাখাপ্রশাখাকে নিম্নলিখিত পাঁচটি নির্দিষ্ট অঞ্চল বা অংশে বিভক্ত করা হয় ।

মূলত্র অঞ্চল

প্রধান মূল ও তার শাখা প্রশাখাগুলির সরু ও নরম মূলের শীর্ষে একটি টুপির মতাে যে অংশ দিয়ে ঢাকা থাকে তাকে মূলত্র ( Root cap ) বলে এবং এই অঞ্চলকে মূলত্র অঞ্চল বলা হয় । 

অনেক ক্ষেত্রে মূল বহুস্তর বিশিষ্ট হয় । একে বহুযােজী মূলত্র ( Multiple root cap ) বলে । উদাহরণ 一কেয়াগাছ ( Pandanus ) । জলজ উদ্ভিদে , যেমন 一 কচুরিপানা ( Eichhornia ) , ক্ষুদিপানা ( Lemna ) ইত্যাদির মূলের আগায় মূলত্র না থেকে পাতলা চোঙার মতাে আবরণ থাকে । একে মূলজেব বা মূলাধার ( Root pocket ) বলে । 

কাজ : ( 1 ) মূলত্র মূলের নরম ডগাটিকে মাটির ঘষা থেকে বাঁচায় । ( ii ) মূলত্র কোশ থেকে একপ্রকার প্রােটিন জাতীয় আঠালাে পদার্থ নিঃসৃত হয় । এই অঞ্চল পিচ্ছিল বলে মূল সহজে মাটির ভিতরে ঢুকতে পারে । ( iii ) জলজ উদ্ভিদে মূলজেবও মূলকে আঘাত থেকে বাঁচায় । মূলজেব থাকায় পােকামাকড় ও জীবাণু থেকে অনেক সময় মূল রক্ষা পায় । 

কোশ বিভাজন অঞ্চল 

মূলত্র অঞ্চলের ঠিক উপরে কিছুটা যে নরম অঞ্চল দেখতে পাওয়া যায় তাকে কোশ বিভাজন অঞ্চল বলে । এই অঞ্চলের কোশগুলি দ্রুত বাড়ে । 

কাজ : ( i ) মূলের দৈর্ঘ্যে বৃদ্ধি ঘটায় । ( ii ) মূলত্রের ক্ষয়পূরণ করাও এই অঞ্চলের কাজ । 

বর্ধনশীল অঞ্চল 

কোশ বিভাজন অঞ্চলের ঠিক উপরে যে অঞ্চলের খুব তাড়াতাড়ি বৃদ্ধি দেখা যায় তাকে বর্ধিষ্ণু বা বর্ধনশীল অঞ্চল ( Growing region ) বলে । ভাজক কলা দিয়ে গঠিত বলে এই অংশে খুব তাড়াতাড়ি কোশ বিভাজন ঘটতে থাকে । 

কাজ : মূলের বৃদ্ধি ঘটানাে বর্ধিষ্ণু অঞ্চলের প্রধান কাজ ।

মূলরােম অঞ্চল 

বর্ধিষ্ণু অঞ্চলের উপরে যে অঞ্চল থেকে অসংখ্য ক্ষুদ্র সুতাের মতাে রােম উৎপন্ন হয় তাকে মূলরােম অঞ্চল ( Root hair region ) বলে । মূলরােমগুলি এককোশী এবং ক্ষণস্থায়ী । পেছনের মূলরােম নষ্ট হলে সামনের দিকে নতুন মূলরােম উৎপন্ন হয় । মূল বহিস্ত্বকের কোশগুলি থেকে বহির্জনিষ্ণু ভাবে ( Exogenously ) গঠিত হয় । এই অঞ্চলকে রােমবহ অঞ্চল ( Piliferous region ) -ও বলা হয় । 

কাজ : ( i ) মূলকে মাটির সঙ্গে শক্ত করে ধরে রাখতে সাহায্য করে । ( ii ) মাটি থেকে জল ও জৈবনিক লবণ শােষণ করে ।

স্থায়ী অঞ্চল 

মূলরােমের পরবর্তী উপরের অংশ যেখানে শাখাপ্রশাখা কান্ডের গােড়া পর্যন্ত বিস্তৃত থাকে তাকে স্থায়ী অঞ্চল বলে । এই অঞ্চল স্থায়ী , কারণ এই অঞ্চলের কোশগুলির বিভাজন ক্ষমতা না থাকায় আর বাড়ে না । এই অংশে প্রধান মূল থেকে শাখা মূল ( Secondary root ) আর শাখা মূল থেকে প্রশাখা মূল ( Tertiary root ) উৎপন্ন হয় । 

কাজ : ( i ) শাখাপ্রশাখা মূল উদ্ভিদকে মাটির সঙ্গে শক্তভাবে আবদ্ধ রাখে । ( ii ) মূলরােম দিয়ে শােষিত জল ও জৈবনিক লবণ এই অঞ্চল পরিবহন করে । ( iii ) নতুন শাখাপ্রশাখা সৃষ্টি করাও এ অঞ্চলের প্রধান কাজ ।

error: Content is protected !!