HIV ভাইরাস

HIV ভাইরাস

index 16
HIV ভাইরাস

HIV ভাইরাসের মাধ্যমে এইডস রােগ সংক্রামিত হয় । এই রােগকে উনবিংশ শতাব্দীর অভিশাপ বলা হয় । 1981 সালে আমেরিকায় প্রথম এই নামটি স্বীকৃতি লাভ করে । এইডসের পুরাে নাম অ্যাকোয়ারড ইমিউনাে  ডেফিসিয়েলি সিনড্রোম ( Acquired Immunodeficiency Syndrome ) । সারা বিশ্বে এই রােগ মহামারির মতাে ছড়িয়ে পড়ছে । HIV কেবলমাত্র মানুষের দেহে সংক্রামিত হয় । এ হল দেহের প্রতিরক্ষা হ্রাসকারী ব্যাধি । 

HIV ভাইরাসের গঠন 

HIV ভাইরাসটি হল রেট্রোভাইরাস এবং এর দেহের মধ্যে একতন্ত্রী RNA প্যাঁচানো অবস্থায় থাকে । RNA এর সঙ্গে রিভার্স ট্রান্সক্রিপটেজ নামে একপ্রকার উৎসেচক থাকে যা RNAকে DNA তৈরিতে সাহায্য করে । RNA এর বাইরে প্রােটিন আবরণী থাকে । প্রােটিন আবরণীর বাইরে পুরু খােলক বা এনভেলপ থাকে । খােলককে বেষ্টন করে যথাক্রমে অন্তঃআবরক ও পর্দা থাকে । এই স্তর অ্যান্টিজেন ও গ্লাইকোজেন যুক্ত হয় । 

এইচআইভি সংক্রমণ কীভাবে ঘটে 

আক্রান্ত ব্যক্তির রক্ত , শুক্র এবং যৌন নিঃসরণের মধ্যে প্রচুর এইডস ভাইরাস থাকে । সুস্থ মানুষের দেহে ভাইরাস প্রবেশ করার পর লিম্ফোসাইট কোশে যায় এবং কোশগুলিকে ধ্বংস করে । এরপর আবার নতুন লিম্ফোসাইটকে আক্রমণ করে । এইভাবে সব লিম্ফোসাইট কোশগুলি ধ্বংস হয় । এতে আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরের প্রতিরােধ ক্ষমতা সম্পূর্ণ নষ্ট  হয়ে যায় এবং রােগী অন্য জীবাণুর আক্রমণে মারা যায় । 

নিম্নলিখিত যে উপায়ে এইডস ভাইরাস এর সংক্রমণ ঘটে তা হলো 一

( i ) রােগীর সঙ্গে অবাধ যৌন সংসর্গ । 

( ii ) দূষিত রক্ত গ্রহণ বা দান করা । 

( iii ) আক্রান্ত ব্যক্তির ইনজেকশনের সিরিঞ্জ ব্যবহার করা । 

( iv ) সেলুনে অপরিশােধিত ক্ষুর দিয়ে দাড়ি কাটা । 

( v ) উলকি , কান বেঁধানোে ও ইনজেকশনের মাধ্যমে মাদকদ্রব্য গ্রহণ করা । 

( vi ) রােগাক্রান্ত মায়ের দেহ থেকে গর্ভস্থ সন্তানের দেহে সংক্রমণ । 

এইডস রোগের লক্ষণ ( Symptoms of AIDS ) 

বাইরে থেকে দেখে কোনাে আক্রান্ত ব্যক্তিকে বােঝার কোনাে উপায় নেই । রক্ত পরীক্ষা করলে রােগ সম্বন্ধে নিশ্চিত হওয়া যায় । নিম্নলিখিত শারীরিক উপসর্গগুলি দেখা যায় , যেমন— ( i ) একটানা অনেকদিন ঘুসঘুসে জুর , ঘুমের সময় অতিরিক্ত ঘাম , ( ii ) পেট খারাপ বা উদরাময় , ( iii ) অনবরত কাশি , ( iv ) মুখের ভিতর সাদাসাদা ছােপ , ( v ) ওজন হ্রাস প্রভৃতি ।

এইডস রোগের সংক্রমণ না ঘটার অবস্থা গুলি ( Conditions for not Transmitting the Diseases )

স্বাভাবিক মেলামেশায় এ ভাইরাস সংক্রমণের কোনাে আশঙ্কা থাকে না । এ ছাড়া ( i ) একই বাড়ীতে বাস করা , ( ii ) করমর্দন করা , ( iii ) রােগীর হাঁচি , কাশির সংস্পর্শে আসা , ( iv ) একই সঙ্গে ভােজন , ( v ) একই সঙ্গে পড়াশুনা করা ইত্যাদি । 

এইডস রোগ প্রতিরোধের উপায়  ( Prevention methods ) 

এইডস রােগের কোনাে ওষুধ আবিষ্কার হয়নি । তবে নিম্নলিখিত বিষয়গুলির ব্যাপারে সচেতন থাকা প্রয়ােজন , যেমন— 

( i ) নিরাপদ যৌন সংস্পর্শ , 

( ii ) রন্ত গ্রহণ বা দানের সময় পরিশােধিত বা নতুন সিরিঞ্জ ব্যবহার করা , 

( iii ) সেলুনে নতুন ব্লেডে দাড়ি কাটা এবং 

( iv ) ব্যাধি সম্বন্ধে সঠিকভাবে জানা ও সচেতন থাকা । বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আর্থিক আনুকুল্যে কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে ন্যাশনাল এইডস কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন ( National AIDS Control Organisation ) নামে একটি সংস্থা আছে । এই সংস্থার কাজ হল জনসাধারণকে সচেতন করে তােলা ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!