ভাইরাসের শ্রেণীবিভাগ

ভাইরাসের শ্রেণীবিভাগ

প্রধানত পােষক নির্বাচন , আকৃতি , রাসায়নিক গঠন ও রােগ সংক্রমণ ক্ষমতা প্রভৃতির উপর নির্ভর করে ভাইরাসের শ্রেণীবিভাগ করা যায় । বিভিন্ন প্রকার শ্রেণীবিন্যাস নীচে দেওয়া হল । 

পােষক নির্বাচন ( Host selection ) 

পােষকের উপর নির্ভর করে ভাইরাসকে তিন ভাগে ভাগ করা যায় , যেমন— 

উদ্ভিদ ভাইরাস :

যে সব ভাইরাস উদ্ভিদ দেহে রােগ সৃষ্টি করে এবং বংশ বিস্তার করে তাদের উদ্ভিদ ভাইরাস বলে । উদাহরণ – টোবাকো মোজাইক ভাইরাস , বিন মোজাইক ভাইরাস , আলুর এক্স ভাইরাস প্রভৃতি । 

প্রাণী ভাইরাস :

যে সব ভাইরাস প্রাণী দেহে রােগ সৃষ্টি করে এবং বংশ বিস্তার করে তাদের প্রাণী ভাইরাস বলে । উদাহরণ – পোলিও ভাইরাস , হাম ভাইরাস , মাম্পস ভাইরাস , ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস প্রভৃতি । 

ব্যাকটেরিয়া ভাইরাস :

এই ভাইরাসের পােষক হল ব্যাকটেরিয়া । এরা ব্যাকটেরিয়ার দেহে বংশ বিস্তার করে । উদাহরণ – ফাজ ভাইরাস বা ব্যাকটেরিওফাজ । 

ভাইরাসের আকৃতি ( Shape of viruses )

আকৃতির উপর নির্ভর করে ভাইরাসকে পাঁচ ভাগে ভাগ করা যায় , যেমন —

( i ) গােলাকার ভাইরাসের উদাহরণ — পোলিও জাপানি এনসেফালাইটিস ভাইরাস । 

( ii ) দন্ডাকার ভাইরাসের উদাহরণ — টোবাকো মোজাইক ভাইরাস । 

( iii ) ডিম্বাকার ভাইরাসের উদাহরণ — মাম্পসইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস । 

( iv ) ঘনক্ষেত্ৰকাকার ভাইরাসের উদাহরণ — বসন্ত রোগের ভাইরাস । 

( v ) শুক্রাণু বা ব্যাঙাচি আকারের ভাইরাসের উদাহরণ — ব্যাকটেরিওফাজ । 

নিউক্লিক অ্যাসিডের প্রকৃতি ( Nature of Nucleic acid )  

নিউক্লিক অ্যাসিডের প্রকৃতির উপর নির্ভর করে ভাইরাস দুটি শ্রেণিতে বিভক্ত , যেমন — 

( i ) ডিঅক্সি ভাইরাস — DNA  যুক্ত বেশির ভাগ প্রাণী ভাইরাস । 

( ii ) রাইবােভাইরাস— RNA যুক্ত বেশির ভাগ উদ্ভিদ ভাইরাস ।

DNA ভাইরাস :

উদ্ভিদ ভাইরাস – ফুলকপির মোজাইক ভাইরাস

প্রাণী ভাইরাস – বসন্ত ভাইরাস , মাম্পস ভাইরাস , হার্পিস ভাইরাস , এনসেফালাইটিস ভাইরাস । 

ব্যাকটেরিয়া ভাইরাস – লামডাফাজ ব্যাকটেরিওফাজ

RNA ভাইরাস :

উদ্ভিদ ভাইরাস – টোবাকো মোজাইক , বিন মোজাইক , পি মোজাইক ভাইরাস । 

প্রাণী ভাইরাস — পোলিও ভাইরাসইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস । 

DNA ও RNA উভয় যুক্ত ভাইরাস :

লিউকো ভাইরাসে প্রজননিক বস্তু RNA , কিন্তু পােষকের দেহকোশে প্রবেশ করার পর প্রজননিক বস্তু DNA- তে রূপান্তরিত হয় ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!